ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা, ফিচার পোস্ট আর্কাইভ

জয়ের প্রত্যাশায় ছিল সব বাঙালি। ক্রিকেটেপ্রমী বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সমর্থকদের হিসেবটা ছিল সেরকমটাই। আমাদের হিসেবের ফলাফলকে নিমিষেই শূণ্যের কোঠায় পৌঁছে দিয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। গত শুক্রবার, ৪ঠা মার্চ ২০১১ তারিখে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট ইণ্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের জয়যাত্রার ভরাডুবি ঘটেছিল। সেদিন কারো কারো দুপুরের নাতিদীর্ঘ ভাতঘুম শেষ হওয়ার আগেই পুরো ম্যাচটির পরিসমাপ্তি ঘটে। খেলায় পরাজয়েরও একটি সন্মানজনক স্কোর থাকে। আমরা যখন ভাবছিলাম আমাদের টিম ২৫০-৩০০ রানেরও বেশি প্রত্যাহ্বান ছুঁড়ে দেবে প্রতিপক্ষের প্রতি, সেখানে আমাদের প্রিয় টাইরগারদের দল ১০০ রানও পার করতে পারিনি। মাত্র ৫৮ রানে সবকিট উইকেট হারিয়ে ১৮.৫ ওভারের মধ্যে পাততাড়ি গুটিয়ে নিতে হয়েছিল তাদের। মাত্র দু’জন ব্যাটসম্যান দু’সংখ্যার ঘরে রান তুলতে পেরেছিল সেই ম্যাচে। জবাবে এই ক্ষুদ্র রান তুলতে ক্যারাবিয়ানরা খুইয়েছিল মাত্র একটি ইউকেট। ১৩ ওভারেই সুনিশ্চিত জয় তুলে নিতে বেশিক্ষণ লাগেনি তাদের। ফলাফল বাংলাদেশ টিমের হার। ফলাফল বাংলাদেশ টিমের সমর্থকদের হতাশা। হতাশার ফলাফলে ক্ষোভ। ক্ষোভের ফলাফল বিক্ষোভ। বিক্ষুব্দ সমর্থকরা হিতাহিতজ্ঞানশূণ্য হয়ে মিরপুর এলাকার বাসে ঢিল ছোঁড়ে। ওয়েস্ট ইণ্ডিজ দলকে নিয়ে যাওয়া গাড়িতে ঢিল ছোঁড়া হয়। সমর্থকদের এই উশৃংখল আচরণ নিয়ে দেশি-বিদেশি পত্রপত্রিকায়, ওয়েব সাইটে আলোচনা হতে থাকে। ওয়েস্ট ইণ্ডিজের কাছে খেলায় পরাজয়ের চেয়ে আমাদের অসৌজন্যমূলক আচরণে আমাদের প্রকৃত পরাজয় ঘটছিল সবার কাছে।

কিন্তু বাঙালি বারবার ঘুরে দাঁড়ানোর জাতি। তাক লাগিয়ে দেয়ার জাতি। উদার জাতি। সেই উদার আন্তরিকতা থেকেই ফয়সল মাসুম একটি আহ্বান জানালেন সবার প্রতি। কেননা সবাই এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্য ওয়েস্ট ইণ্ডিজ দলের কাছে দুঃখ প্রকাশ করি?

ফয়সল মাসুমের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে তরুণ-তরুণীরা। ‘চলো, আমাদের অতিথিদের কাছে দু:খ প্রকাশ করি’ (“Lets say sorry to our guest” ), এই আবেগকে ধারণ করে ৫ই মার্চের ভোর ছ’টায় শাহবাগে জমায়েত হয় সবাই। হাতে লেখা ‘স্যরি’ ব্যানার আর ফুল হাতে শেরাটনের সামনে দাঁড়ায় দশজন। নিরাপত্তা জনিত কারণে গেইল হোটেলের নীচে নেমে আসেননি। তবে তিনি তার মোবাইলটি লোক মারফত পাঠিয়ে দেন ব্যানার হাতে দাঁড়ানো তরুণদলের ছবি তুলতে। ওয়েস্ট ইণ্ডিজ দলের পক্ষ থেকে ড্যারেন সামি শুভেচ্ছা ফুল গ্রহণ করেন।

ফয়সল মাসুম ৫ই মার্চ একটি ফেসবুক নোটের মাধ্যমে ওয়েস্ট ইণ্ডিজ দলের কাছে কিছু বাঙালি সমর্থকদের উশৃংখলতার জন্য আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করেন।

Dear West Indies,

We are extremely ashamed and sorry at this incident. No words can help ameliorate what the West Indies Cricket team had to suffer because of some insensible, insolent human being. To Mr Gayle and the rest of the team, please understand that this incident was totally out of real flow. WI and all other team are always welcomed by the general people of Bangladesh.

We love the game of cricket .West Indies cricket team has been a great team over the years. What happened was unintentional from us. But we ,the people of Bangladesh are seeking apology from you guys. Keep on your good works and best of wishes for matches to come.

WE ARE SORRY.

প্রিয় ওয়েস্ট ইণ্ডিজ,

আমরা অত্যন্ত লজ্জিত এবং দুঃখিত এই অঘটনের জন্য। কিছু অবিবেচক, নিষ্ঠুর মানুষের কারণে ওয়েস্ট ইণ্ডিজ ক্রিকেট দলকে যে দুঃখজনক অভিজ্ঞতা লাভ করতে হয়েছিল, তা কোন শব্দ দিয়ে পূরণ করা যাবে না। মিস্টার গেইল এবং দলের বাকীরা, অনুগ্রহ করে উপলব্ধি করো, এই দুর্ঘটনা পুরোপুরি মূল ধারার বিপরীত। ওয়েস্ট ইণ্ডিজ এবং অন্য সকল দল সব সময়ই বাংলাদেশের সর্বসাধারণ দ্বারা আমন্ত্রিত।

আমরা ক্রিকেটেপ্রেমী। ওয়েস্ট ইণ্ডিজ ক্রিকেট দল বছর জুড়ে দারুণ খেলে আসছে। যা ঘটেছে, তা সম্পূর্ণই অনিচ্ছাকৃত। তবে আমরা, বাংলাদেশিরা দু:খ প্রকাশ করছি তোমাদের কাছে। তোমাদের সাবলীল খেলা চালিয়ে চাও এবং আগামীর খেলার জন্য শুভ কামনা।

আমরা দু:খিত।

ইতিমধ্যে ফেসবুক পাতাও খোলা হয়েছে ওয়েস্ট ইণ্ডিজ দলের কাছে দু:খ প্রকাশ করে।

বাঙালির যে আচরণ এই দেশকে ভুল ভাবে তুলে ধরতে যাচ্ছিল, আমরা এক হয়ে সেই ভুল ভাঙিয়ে দিয়েছি মুহূর্তেই। এই তো আমাদের সবচেয়ে বড় জয়। সবচেয়ে বড় অর্জন। এই তড়িৎ পদক্ষেপ আপ্লুত করেছে অসংখ্য বাঙালিকে। ব্লগার আসিফ আহমেদ মামুন বলেছেন,

কি লিখব ? কিছুই বুঝতে পারছি না। আমি আসলেই ভাষাহীন হয়ে পড়েছি।

শখানেক মানুষ শেরাটনের সামনে দাড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের কাছে ক্ষমা চাইল। ড্যারেন সামি তাদের হাত থেকে ফুল নিল, গেইল তার সেলফোন পাঠিয়ে দিল ছবি তোলার জন্য। এসবই সম্ভব হয়েছে সোনার বাংলার কিছু সোনার ছেলেদের জন্যে। আমার খুবই ইচ্ছে করছে এদের সম্মান জানাতে…..। আমরা সেরা জাতি এটা আবার প্রমাণিত হল।

ব্লগার রূপকথার রাজকন্যা বলেছেন,

কোথায় করা হয়েছে এটা? কারা করেছে? মহাত্মা গান্ধির একটা লাইন লাগে রাহো মুন্না ভাই এ শুনেছিলাম…থাপ্পর মারা সহজ কিন্তু মাফ চাওয়া সহজ নয়…এর জন্য সাহস লাগে। সাহসী টাইগারদের অভিনন্দন।

ব্লগার সাব্বির ইসমাইল বলেছেন,

By this historical step, we have just been able to minimize the load of shame. Appreciate it & want to say “Thank You” to the organizers.

এই ঐতিহাসিক পদক্ষেপ দ্বারা আমরা আমাদের লজ্জাকে কমিয়ে আনতে সমর্থ হয়েছি। সাধুবাদ জানাই এবং বলতে চাই, “ধন্যবাদ”, উদ্যোক্তাদেরকে।

খেলায় হারজিৎ থাকবে। প্রিয় দল হেরে গেলে ক্ষোভও আসবে। কিছু তার বহি:প্রকাশে আমরা অসংযত হবো না, এই শিক্ষাই দেয়ার সফল চেষ্টা করলো তরুণ প্রজন্মের কিছু ছেলেমেয়েরা। এবং আমরা আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাথে আছি এখনও, বুক ভরা শুভেচ্ছা নিয়ে। কারণ, এখন আসিফ আহমেদ মামুন এর মতো করেই অসংখ্য বাঙালি বলছে, আমরা আবার প্রমাণ করলাম আমরা আসলেই পারি । আর তাই আমাদের পারতে হবে আগামীতেও। জিতবো আমরাই।

————————————————————————————————————————————
ছবি: Tabrej, [ফেসবুক গ্রুপ ৩২টা থাপ্পড় দিয়া ১টা দাঁত ফালাইয়া দিমু, Apology to West Indies Cricket Team]