ক্যাটেগরিঃ প্রকৃতি-পরিবেশ

 

ন্যাশনাল পার্ক দেশের সবচেয়ে বড় এবং সবুজের সমারোহে আবৃত গাজীপুরে অবস্থিত। দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকে সপ্তাহের বেশ কয়েকটি দিন। অথচ পার্কটির রক্ষনা বেক্ষনের জন্য যারা রয়েছেন তাদের কার্যক্রম বলতে গেলে একদম নিষ্ক্রিয়। যত্ন তো নেয় ই না বরংচ অশালীন কার্যকলাপের সাথে যুক্ত।

ন্যাশনাল পার্কটির ভিতরে গড়ে উঠেছে সন্ত্রাসী, ছিনতাইকারীদের আখড়া। সেইসাথে পার্কে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্যা ময়লা আর আবর্জনা। পার্কটির ভিতরে ঢুকতেই চোখে পড়বে অশালীন আর অসামাজিক পরিবেশগুলো। রেস্ট হাউজ আর কর্মচারী-কর্মকর্তাদের থাকার ঘরগুলো দিনের বেলা ভাড়া দেওয়া হচ্ছে দৈহিক ও যৌন কার্যকলাপের জন্য। যেখানেই তাকাবেন সেখানে চোখে পড়বে যুগল বন্দী তরুন তরুণীর। অবাধে ভাড়া দেওয়া হচ্ছে পার্কের ভিতরের ঘরগুলো। নেই কোন বাধা, নেই কোন নিয়ম নীতি, নেই কোন চিন্তা। ভাড়া দিলেই টাকা।

পার্কের ভিতরে একটু নিরব এলাকায় অথবা ভিতরে গেলে উপায় নেই, হয় সন্ত্রাসী নয় ছিনতাইকারীরা সব কিছু ছিনিয়ে নিয়ে বানিয়ে দেয় সর্বশান্ত। কোন কোন জায়গায় মেয়েরা গনধর্ষনের শিকার হয়।

পার্কটিকে ঘিরে ওঠা সমস্ত বিপনন দোকানগুলোও কম কিসে। চড়া দাম রাখবে প্রতিটি পণ্যের জন্য। ন্যাশনাল পার্কটির চরম অব্যবস্থাপনা চরম পর্যায়ে পৌছেছে। এখানে ঘটে যাওয়া নানা অঘটন সরকারের কান পর্যন্ত পৌছালেও সরকারের কোন কর্ণপাত নেই, কোন সরকারই কোন ধরনের উদ্যোগ নেয় নি।

পার্কটির সঠিক ব্যবস্থাপনা, রক্ষনা-বেক্ষন, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, অশালীন কার্যক্রম বন্ধ করা সহ নানা বিষয়ে সরকারের হস্তক্ষেপ করা দরকার। পার্কটির জন্য যদি এখনই কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা না হয় তাহলে হয়তো এই ন্যাশনাল পার্কটি একদিন দশনার্থীদের জন্য সুফল বয়ে আনবে না।

জাতীয় এই সম্পদ কি দেখার মত কেউ নেই?