ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

ফতোয়া কী?‎
ফতোয়া হল একটি আরবী শব্দ। যা কুরআন সুন্নাহ তথা ইসলামী শরীয়তের একটি মর্যাদাপূর্ণ পরিভাষা। ‎দ্বীন-ধর্ম সম্পর্কে জিজ্ঞাসার পর একজন দ্বীন ইসলাম সম্পর্কে প্রাজ্ঞ মুফতী কুরআন-হাদীস ও ইসলামী আইন ‎শাস্ত্র অনুযায়ী যেই সমাধান দেন তাই “ফতোয়া”। ইসলামী বিধান বর্ণনাকারীকে বলে “মুফতী” আর যে ‎সকল প্রতিষ্ঠান এই দায়িত্ব পালন করেন তাকে বলে “দারুল ইফতা”।
ফতোয়ার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা

ফতোয়ার উল্লেখিত সংজ্ঞা দ্বারা সহজেই অনুমেয় মুসলমানদের জন্য ফতোয়া কী পরিমাণ আবশ্যকীয় বিষয়। ‎আমরা যেহেতু বিশ্বাস করি আমরা দুনিয়াতে থাকার জন্য কেউ আসিনি। আখেরাতে আমাদের ফিরে যেতে ‎হবে। মহান আল্লাহর সামনে দাঁড়াতে হবে। দুনিয়ার আমাল তথা কাজকর্মের হিসেব দিতে হবে। তাই ‎দুনিয়াতে যথা সম্ভব মহান আল্লাহর বিধানের উপর আমল করতে হবে। আর আমরা জানি! কোন বিষয় করার ‎জন্য সে ব্যাপারে সম্যক অবগতি থাকা আবশ্যক। সুতরাং একজন মুসলমান যদি ইসলামী রীতি মানতে চায়, ‎তবে তারও সে ব্যাপারে না জেনে আমল করা সম্ভব নয়, তাই বাধ্য হয়ে তিনি তা জানতে চাইবেন এ ব্যাপারে ‎একজন প্রাজ্ঞ ব্যক্তির কাছে, এটাই তো স্বাভাবিক। তারপর এ বিষয়ে প্রাজ্ঞ ব্যক্তি যেই সমাধান জানাবেন ‎ইসলামী পরিভাষায় তাই হল “ফতোয়া”।

আমরা কি বলব? কেউ এভাবে ইসলামী সমাধান জানতে চাইলে তাকে সমাধান জানানো যাবেনা?! যদি ‎তা’ই হয় তবে সাধারণ মুসলমানরা ধর্মের উপর আমল করবে কীভাবে? সকল মানুষেরা কী নিজে নিজে ‎ধর্মীয় প্রাজ্ঞ হয়ে নিজের সমাধান নিজেই দেয়া সম্ভব? সাধারণ মুসলমানদের ফতোয়া ছাড়া মুসলমান হিসেবে ‎টিকে থাকা কি সম্ভব?‎

ফতোয়া দেয়া আমাদের সাংবিধানিক অধিকার
আমরা মুসলমান। মুসলমান হিসেবে ইসলামী বিধান যথা সম্ভব পালন করব এটা আমাদের সাংবিধানিক ‎অধিকার, যা সংবিধানের বিভিন্ন ধারায় স্বীকৃত। এখানে আমরা একটি ধারা উল্লেখ করছি-‎
৪১(১) আইন, জনশৃংখলা ও নৈতিকতা সাপেক্ষে (ক) প্রত্যেক নাগরিকের যে কোন ধর্মাবলম্বন, পালন বা ‎প্রচারের অধিকার রহিয়াছে। (খ) প্রত্যেক ধর্মীয় সম্প্রদায় ও উপ-সম্প্রদায়ের নিজস্ব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান স্থাপন, রক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার অধিকার ‎রহিয়াছে,(গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান)‎ আপনাদের কাছে আমার প্রশ্ন হল-কোন ধর্ম প্রচার কী সম্ভব তার বিধান বর্ণনা করা ছাড়া? বিধান সম্পর্কে না ‎জেনে তা কী পালন করা যায়?‎
সুতরাং সংবিধান অনুযায়ী সাধারণ মুসলমান একজন প্রাজ্ঞ মুফতীর কাছে ধর্মীয় বিষয়ে সমাধান জানার ‎অধিকার রাখে, আর প্রাজ্ঞ মুফতী তার ধর্মীয় সমাধান জানানের অধিকার রাখে। নতুবা ধর্ম প্রচার সম্ভব নয়।
যেদিন থেকে ইসলাম সেদিন থেকেই ফতোয়া মহান রাব্বুল আলামীন রাসূল সা: কে যেসব দায়িত্ব দিয়েছেন তার মধ্যে একটি হল ফতোয়া তথা ইসলামী ‎সমাধান জানানো। সুতরাং মুসলমান কী করে ফতোয়া শব্দের অপপ্রয়োগ করে বিভ্রান্তি ছড়াতে পারে?‎

ফতোয়ার পরিধি
মুসলমানদের জীবনে ফতোয়ার পরিধি খুবই ব্যাপক। একজন মুসলমানের পারিবারিক, রাষ্ট্রীয়, অর্থনৈতিক ‎সর্বক্ষেত্রে ফতোয়ার প্রয়োজন। নামায,রোযা, হজ্ব, যাকাত, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ বিবাহ-তালাক, মিরাছ সর্বত্র ‎ফতোয়াই হচ্ছে মুসলমানদের জন্য সঠিক সমাধান জানার পথ। সুতরাং ইসলামিক জীবনে ফতোয়া হল ‎আবশ্যিক একটি অনুসঙ্গ। এছাড়া একজন মুসলমান খাঁটি মুসলমান হিসেবে টিকে থাকা অসম্ভব।
ফতোয়া কারা দিবে?‎

ফতোয়া দেবার অধিকার কেবল ইসলামী আইন শাস্ত্র নিয়ে যারা পড়াশোনা করে কোন স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে ‎কৃতিত্ব সহকারে সনদ সংগ্রহ করেছেন। তিনি যখন কুরআন-হাদিস ও ইজমা-কিয়াসের ভিত্তিতে ইসলামী ‎আইন শাস্ত্রের রীতি মেনে ফতোয়া দিবেন তখন তার ফতোয়া গ্রহণযোগ্য হবে।

বিচার ব্যবস্থা ও ফতোয়া
ইসলামী শরীয়তে বিচার ব্যবস্থা ও ফতোয়া দু’টি এক জিনিস নয়। আমাদের অজ্ঞতাবশত: দু’টিকে একসাথে ‎গুলিয়ে ফেলার কারণেই আমাদের সমাজে এই ভুল বুঝাবুঝির মুল কারণ। সমাধান জানানো মুফতী কাজ, ‎কিন্তু তা প্রয়োগ করার কোন অধিকার তার নেই। আর ইসলামী সরকার কর্তৃক নিযুক্ত বিচারক তা প্রয়োগ ‎করবেন। সুতরাং আমাদের দেশে সংঘটিত দোর্রা মারা ও পাথর নিক্ষেপ করে কাউকে হত্যা করা কী ‎ফতোয়ার দোষ? আর সত্যিকারর্থে কী সব ঘটনা সত্যিকার মুফতীর ফতোয়ার কারণে হচ্ছে? না গ্রাম্য ‎মোড়লদের সালিসি সিদ্ধান্তের কারণে? একবার শান্ত মাথায় ভাবি। ‎
গ্রাম্য সালিসি সিদ্ধান্ত ও ফতোয়া শব্দের অপপ্রয়োগ

উপরোক্ত আলোচনা মনযোগ সহকারে পড়লে আমরা নিশ্চয় বুঝে যাব আমাদের দেশে কী পরিমাণ বিভ্রান্তি ‎ছড়ানো হচ্ছে ফতোয়ার মত পবিত্র শব্দ নিয়ে। কী কৌশলে ইসলামের এই পবিত্র শব্দকে কলুষিত করা হচ্ছে ‎গ্রাম্য মোড়লদের সালিসি দরবারী সিদ্ধান্তকে ফতোয়া বলে। সাম্প্রতিক কয়েকটি ঘটনার দিকে আমরা দৃষ্টি ‎বুলালে বিষয়টি আমাদের কাছে স্পষ্ট হবে-‎

কেস ষ্টাডি-১. নওগাঁ জেলার বিনহালী গ্রামে গৃহবধু লাভলীর মাথা ন্যাড়া করার ঘৃণ্য ঘটনায় জড়িত ‎অপরাধীরা সবাই গ্রাম্য মাতাব্বর। যাদের নাম যথাক্রমে-১. সাদেক হোসেন বাবু। ২. মাতাব্বর উজ্জল। ৩. ‎মোজাফ্ফর ৪. শফিকুল। ‎

কেস ষ্টাডি-২. মৌলভীবাজার সদর উপজেলার একাটুনা ইউনিয়নের বড়কাপন গ্রামে ফতোয়ার ঘটনা নিয়ে ‎স্থানীয় চার ব্যক্তিকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। ২৪ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় বড়কাপন জামে মসজিদের সেক্রেটারি ‎মৌলবি ফয়জুল, আজাদ মিয়া, নানু মিয়া ও আছকর মিয়াকে আদালতে হাজির হতে বলা হয়েছে। ‎মৌলভীবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) ওই দিন তাঁদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে নির্দেশ ‎দেওয়া হয়েছে।

কেস ষ্টাডি-৩. রাজশাহী জেলার তনোরের কচুয়া গ্রামে সুফিয়া নামে গৃহবধুকে গ্রাম্য সালিসের ভিত্তিতে ‎দোর্রা মারলে সে অসুস্থ্য হয়ে মারা যায়। উক্ত ঘটনায় জড়িত হিসেবে প্রাথমিকভাবে প্রধান আসামী হিসেবে ‎গ্রেফতার করা হয়-১. কচুয়া মসজিদের মুয়াজ্জিন সাজ্জাদ আলী ও দোর্রা মারার সাথে জড়িত মেহেরজানকে।

কেস ষ্টাডি-৪. মৌলভীবাজার জেলার সীমান্তবর্তী কমলগঞ্জ উপজেলার পাহাড় টিলা বেষ্টিত ছোট একটি ‎গ্রাম ছাতকছড়া। সেই গ্রামের আশ্রব উল্লার যুবতী কন্যা নুরজাহান ছিলো ভাই বোনদের মধ্যে চতুর্থ। ‎নুরজাহান বেগমকে প্রথমে বিয়ে হয় শেরপুর এলাকার আব্দুল মতিনের সঙ্গে। বিয়ের পর দীর্ঘ দিন স্বামীর ‎কোন খোঁজ খবর না থাকায় পিতা আশ্রব উল্লা মেয়ে নুরজাহানকে নিয়ে আসেন ছাতকছড়া গ্রামের নিজ ‎বাড়ীতে। পিতার বাড়ীতে নুরজাহান আসার পর স্থানীয় মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল মান্নান গৃহবধু ‎সুন্দরী নুরজাহানের প্রতি কু-নজর পড়ে এবং তাকে বিয়ে করার জন্য নুরজাহানের পিতার কাছে বিয়ের ‎প্রস্তাব পাঠায়। নুরজাহানের পিতা আশ্রব উল্যা মাওলানার প্রস্তাবে রাজী না হয়ে একই গ্রামের মোতালিব ‎হোসেন মতলিব মিয়ার সঙ্গে নুরজাহানের দ্বিতীয় বিয়ে দিয়ে দেন। বিয়ে করতে না পেরে মাওলানা আং ‎মান্নান প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য ক্ষীপ্ত হয়ে উঠে এবং নানা ছলচাতুরী শুরু করে। বিয়ের ৪৫দিন পর মাওলানা ‎আ: মান্নান নুরজাহান ও আব্দুল মতলিবের ২য় বিয়েকে অবৈধ বলে ফতোয়া জারী করে এবং গ্রাম্য সালিশের ‎ডাক দেয়। মাওলানা মান্নানের কথামত ১৯৯৩ সালের ১০ জানুয়ারী সকালে একই গ্রামের নিয়ামত উল্লার ‎বাড়ীতে গ্রাম্য সালিসি বিচার বসে। সালিশী বিচারে গ্রামের মনি সর্দার, দ্বীন মোহাম্মদ, নিয়ামত উল্লা ও ‎মাওলানা মান্নান প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ নুরজাহান ও মতলিবের পরিবারকে দোষী সাব্যস্ত করে। সেই বিচারে গৃহবধু ‎নুরজাহানকে মাটিতে পুঁতে ১০১ টা পাথর নিক্ষেপ করার রায় ঘোষণা দেয়া হয়। সালিশী রায় কার্যকর করার ‎পর উপস্থিত গ্রাম্য সর্দার মনির মিয়া নুরজাহানের উদেশ্যে বলতে থাকে এত কিছুর পর তোর বেঁচে থাকা ‎উচিত নয়। তোর বিষ পানে মরে যাওয়া উচিত। গ্রাম্য এ সর্দারের কটু উক্তি সহ্য করতে না পেরে দুঃখে ‎গৃহবধু নুরজাহান সেই দিনই বিষ পানে আত্মহনন করে। ‎

বিজ্ঞ পাঠকের কাছে আমার বিনীত অনুরোধ আপনারা ভাল করে তাকিয়ে দেখুন তো উল্লেখিত কোন ‎ঘটনার সাথে ইসলামী শরীয়তের ফতোয়ার বিষয়টি জড়িত? এই সকল ঘটনায় জড়িত কোন ব্যক্তিটি প্রাজ্ঞ ‎মুফতী? এগুলোর কোনটিই কোন প্রাজ্ঞ মুফতীর দ্বারা সংঘটিত নয়। সুতরাং প্রথমত এগুলো ফতোয়া হবার ‎প্রশ্নই আসেনা। আর ফতোয়া হলেও প্রয়োগের অধিকার ইসলামী শরীয়ত তো তাকে দেয়নি, যেমন বিচার ‎ব্যাবস্থা ও ফতোয়ার মাঝে পার্থক্য শিরোনামে ইতোপূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে। এই সব ক’টি গ্রাম্য “সালিস” ‎দরবারী লোকদের খেয়ালিপনা। এগুলোর ক্ষেত্রে ইসলামের একটি পবিত্রতম শব্দ “ফতোয়া” এই শব্দের ‎অপপ্রয়োগ করছেন কেন? সাংবাদিকদের ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞতা দেখে মুসলমান হিসেবে লজ্জায় মাথা হেট ‎হয়ে আসে। হায়রে! কোথায় সালিসি জুলুম! আর কোথায় পবিত্র ফতোয়া!! ‎

উপসংহার
‎“ফতোয়া মানে কী?” এটা না জেনেই ইসলামের শত্রুদের শিখিয়ে দেয়া বুলি অজ্ঞের মত সালিসি সিদ্ধান্তকে ‎ফাতোয়া বলে অপপ্রয়োগ না করতে সকল মুসলমানদের প্রতি আমার আকুল আবেদন থাকবে। এই পবিত্র ‎শব্দের অপপ্রয়োগ করে গুনাহগার হওয়া থেকে আল্লাহ আমাদের হিফাযত করুন। ‎

***
লুৎফর রহমান ফরায়েজী
ইমেইল-lutforfarazi@yahoo.com