ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

মাননীয় প্রধান বিচারপতি যদি সত্যি কথা বলতে পারেন তাহলে আমরা কেন বলবো না? তিনি বলেছেন উকিল সাহেবদের অজ্ঞতা ও উদাসীন মনোভাবের কারনে ৭০ ভাগ বিচার প্রার্থী ন্যায় বিচার পান না।তাহলে প্রশ্ন হলো যিনি ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হলেন উনার দায় ভার কে নিবেন?আর এ ব্যাবস্থা চলতে থাকলে ভবিষ্যতে আদালত পাড়ার অবস্থা কি হবে তা চিন্তা করলেই গা শিউরে উঠে।আর যদি উকিল বদলানো হয় তাহলে কি নিশ্চিত করে বলা যায় যে ন্যায় বিচার পাওয়া যাবে?তাদের বদলালে কাজ হবে না খরচের বোঝা বাড়বে।তাহলে কি আমরা ন্যায় বিচার কোন দিনই পাবো না?
সত্যি কথা বলতে মানুষ বিপদে পড়ে পুলিশের কাছে যায় সে বিপদ থেকে উদ্ধার পাওয়ার আসায়।আর ঠিক তখনই সেই বিপদের মাত্রাটা বেড়ে হয় দ্বীগুন।যখন পুলিশের সাথে উকিল যোগ হয় সেই বিপদের মাত্রা হয়ে যায় তিন গুন।মানে অনেক সহজ এ যেন আগুন থেকে বাচতে গরম পানিতে লাফ দেওয়ার মতো।অনেক সত্য জেনেও না যানার ভান করাটা এখন বাংগালীর অভ্যাস হয়ে গেছে।কিন্তু এ থেকে কিভাবে বের হওয়া যায় বা ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা যায় তা কিন্তু কোন কর্তা ব্যাক্তি আজও উল্লেখ করেন নাই।আসলে বিনে পয়সায় কে যাবেন অযথা গাইডলাইন দিতে?বলে কি লাভ?বাঙ্গালীর অভ্যাস খারাপ।
তিনি এও বলেছেন আগে শুনেছেন মাননীয় হাইকোর্ট এর দৈনিক কজ লিস্টে নাম্বার উঠানোর জন্য তদবির করা হতো।এখন শুনেন তদবির করা হয় যাতে নাম্বার না উঠে।কি ভয়ংকর কথা একবার ভেবে দেখুন।তাও আবার সুপ্রীপ কোর্ট এর মতো যায়গায়।যেখানে ধনী গরীব সবারই আল্লাহর পর এই একটাই যায়গা ন্যায় বিচার পাবার।তাও মনে হয় আর থাকবে না।যাক বেশী বললে আবার কন্টেম্পট অফ কোর্ট হয়ে যেতে পারে তাই কথা না বাড়ানোই শ্রেয়।