ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

5
২৮শে মার্চ বসন্তের এদিনে ৪৪ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা পা রেখেছিল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ আঙ্গিনায়। শুরু হয়েছিল নতুন জীবনের এক বর্ণিল গল্প। নতুন বন্ধুত্ব, নতুন কিছু মানুষ। নতুন কিছু পাওয়ার স্বপ্ন। খুঁজে পেয়েছিল নিজেকে নতুন ভাবে গড়ার প্লাটফর্ম। শুরু হয়েছিল সিনিয়র জুনিয়রের নতুন এক অধ্যায়। এসব কিছুর মজায় যখন ৪৪তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা মত্ত্ব। আনন্দকে যখন উপভোগ করা সবেমাত্র শুরু। ঠিক তখন দরজায় কড়া নাড়তে শুরু করলো দ্বিতীয় বছরের বিদায়ের ঘন্টা। সুখ, দুঃখ, আনন্দ, বেদনা আর ভালবাসায় সিক্ত দুটি বছর পার করে দিয়েছে তারা।
o1
তাইতো আজ (২৮ মার্চ) ৪৪তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে আনন্দ উল্লাস আর নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালন করে নিয়েছে দ্বিতীয় বর্ষপূর্তির এ দিনটিকে। সকাল থেকে প্রায় প্রতিটি বিভাগ থেকে র‌্যালী নিয়ে বের হয়েছে শিক্ষার্থীরা। ক্যাম্পাস ঘুরে ব্যান্ডের সূরে নেচে গেয়ে, রং মাখতে মাখতে জানান দিয়েছে ৪৪তম ব্যাচের জয় উল্লাস। এছাড়াও কেক কেটে রং-বেরঙয়ের টি-শার্ট পরে সেলফি আর ছবি এ সবতো আছেই। সব মিলিয়ে আজ যেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যলয় ক্যাম্পাস পেয়েছে নতুন প্রাণ। জেগে উঠেছে নতুন রূপে।
o3
আজ ভীষন মনে পরছে নতুনদের মত আমরাও এ ক্যাম্পাসে ভর্তি হওয়ার জন্য মুখোমুখি হয়েছিলাম এক ভর্তিযুদ্ধে। অসীম প্রচেষ্টা আর তীব্র আকাঙ্খার ফলে সেই যুদ্ধে জয়লাভ। তারপর ভর্তি হওয়া ৪৪ তম ব্যাচ হিসেবে এ ক্যাম্পাসে। আমাদের এ ক্যাম্পাসে আগমন ঘটার আগে একে একে এ ক্যাম্পাস থেকে বিদায় নিয়েছে ৩৯টি ব্যাচ। আমরা নবীন হয়ে এসেছিলাম এ ক্যাম্পাসে। মনের মধ্যে ভীষণ ভাললাগা আর অসীম ভয় নিয়ে পা রেখেছিলাম সংস্কৃতির এ রাজধানীতে। পুরোনো বন্ধুদেরকে ছেড়ে এসে মনটা ছিলো ভীষণরকম খারাপ। ঠিক তখন এমন কিছু বন্ধু তৈরী হয়ে গেল যাদের স্মৃতি মনের মণিকোঠায় এমন ভাবে গেঁথে গেছে যা সারাজীবনেও ভুলা সম্ভব নয়। তাদের সাথে কাটানো কিছু মূহুর্ত এ যেমন ক্লাস শেষে শহীদ মিনারে আড্ডা দেওয়া। দল বেঁধে ক্যাম্পাসে ঘুরাঘুরি করা। হাটতে হাটতে গলা খুলে গান গাওয়া, বন্ধুরা সবাই এক জায়গায় বসে চা খাওয়া, টাকা তুলে বিল দেওয়া, চাদাঁ তুলে বন্ধুদের জন্মদিনের পার্টিগুলো পালন করা। এসব যেন রক্তের সাথে মিশে গেছে। তাইতো দুটি বছর চোখের নিমিষেই কেমন করে যেন পার হয়ে গেল। স্মৃতিতে অম্লান হয়ে থাক ৪৪ তম ব্যাচের সকল শিক্ষার্থীর বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রতিটি মূহুর্ত। আনন্দে কাটুক জীবনের বাকি সময়টুকু।
o2