ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

 

মাহবুবুল আলম ।।

ফেইসবুক যে এখন পৃথিবীজুড়ে তুমুল জনপ্রিয় একটি যোগাযোগ মাধ্যম তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। তাই প্রতিদিনই ফেইসবুকে ঘটছে অনেক মজার মজার ঘটনা। এমনই একটা মজার ঘটনার দেখা ও শোনার অভিজ্ঞতা হলো আমার। বিকেলে রুটিনমাফিক হাটাহাটি শেষ করে যখন বাসায় ফিরছি শুরু হলো আকাশভাঙ্গা বৃষ্টি। বৃষ্টির দৌড়ানী খেয়ে শেষ পর্যন্ত আশ্রয় নিলাম গিয়ে একটি রেস্টুরেন্টে। একটা ফাঁকা টেবিল পেয়ে বসে গেলাম। রেষ্টুরেন্টে যেহেতু ঢুকেছি তখন একটা না একটা কিছুর অর্ডারতো দিতে হয়। তাই চায়ের অর্ডার দিয়ে জানালা দিয়ে বৃষ্টি দেখছি। আষাঢ়ের বৃষ্টি বলে কথা রাস্তা-ঘাট যেন সব ভাসিয়ে নিতে চাইছে। চা এসে গেছে। চায়ে প্রথম চুমুক দিতেই দেখি সামনের চার জন তরুণ ডালের বড়া খেতে খেতে জমিয়ে আড্ডা দিচ্ছে। আড্ডার বিষয় ফেইসবুকে লাইক কমেন্টস এর লেনাদেনা নিয়ে।

 

এদের মধ্যে একজন তরুণ খুবই আক্ষেপ করে বলছে,‘এখন থেকে আর আমি কোন ..রে লাইক বা কমেন্টস দিমু না। আরেক জন বলে,‘কেন কি হয়েছে হঠাৎ করে এমন ক্ষেপলি ক্যান ? তুই তো এ ব্যাপারে খুবই উদার ছেলে-বুড়ো, নারী-পুরুষ সবাইকে দু’হাত ভরে লাইক আর কমেন্টস দিস, আজ আবার কি হলো?’ ক্ষেপে যাওয়া তরুণটি বলে ‘ সেই জন্যইতো ক্ষেপছি, সব ..রাই লাইকখোর আর কমেন্টসখোর ‘ ছেলেটির এ কথা শুনে সঙ্গীয় বন্ধুরা সবাই উচ্চস্বরে হেসে ওঠে। তাদের এ কান্ডকারখানা আমি খুব মজা করেই দেখছি। ছেলেটির কথা কেড়ে নিয়ে অন্যজন বলে ‘ঠিক বলেছিসতো আমিও ব্যাপারটা নিয়া চরম ব্যথিত। কিছু লোক আছে তাদের স্টেটাসে লাইক আর কমেন্টস পাওয়ার কাঙ্গাল। কিন্তু অন্যের পোস্টে একটা লাইক ও কমেন্টসও করবে না। এদের মধ্যে অখ্যাত বিখ্যাত সবাই সমান’। যে ছেলেটি এ অযাচিতো এই বিতর্ক শুরু করেছিল সে তখন বলে,‘এরা অন্যের পোস্টে লাইক দিবে না, কিন্তু নিজের পোস্টে কয়টা লাইক বা কমেন্টস হয়েছে তা কিছুক্ষণ পর পরই হিসাব করে দেখে ।

আমার বিবেচনায় এখানে সবচেয়ে চাপা স্বভাবের ছেলেটা এবার মুখ খুলে‘ আরে দোস্ত, এরা শুধু নিজের পোস্টে লাইক কমেন্টস এর হিসাবই রাখে না। এ নিয়ে অন্যদের সাথে বুক ফুলিয়ে বলে‘ জান! আমার এ পোস্টটায় হ্যাভি লাইক পড়ছে, ৫শ’ লাইক ছাড়িয়ে গেছে কবেই। যখন বলে তখন মনে হয় ওনি বিশাল সেলিব্রেটি। কানা ছেলের নাম পদ্মলোচন! আক্ষেপ করা ছেলেটি যোগ করে-আরে দোস্ত বিখ্যাতরাতো এ ব্যপারে আরো কিপটে। জীবনেও কারো পোস্টে লাইক বা কমেন্ট করবে না। লাইক বা কসেন্টস পাওয়া যেন এদের একচ্ছত্র অধিকার, হে রা ই লাইক পাওয়ার যোগ্য আর কেউ না। আরেকজন কথা কেড়ে নেয়-‘আরে ভাই মানুষের জীবনের সব লেনাদেনার মতো ফেইজ বুকের লাইক কমেন্টস এর ক্ষেত্রেও যে লেনাদেনা আছে তা ওদের বিবেকে আসেনা। যতসব ফালতু। ক্ষেপে যাওয়া ছেলে বলে-‘আইজ থাইক্যা কোন ..র পোস্টে আর লাইক বা কমেন্টস দিমুনা। যারা শুধু লাইক বা কমেন্টস পাইতে চায় কিন্তু কারো পোস্টে লাইক বা কমেন্ট করেনা ওইসব লাইকখোর আর কমেন্টসখোর ..গারে … মারি।

তার ওই কথা শোনে আমার পেট ফেটে হাসি আসছিল। আবার দুঃখ ও লাগলো। ছেলেটিতো একেবারে মিথ্যা কথা বলেনি তার ক্ষোভের ভেতর অনেক সত্যতা আছে। হ্যায় বেচারা।

 

ততক্ষণে বৃষ্টি থেমে গেছে আর আমিও পেটের হাসি উগরে দিতে দিতে রেস্টুরেন্ট থেকে বেরিয়ে এলাম। তবে একটি কথা না বললেই নয়, তাদের এ কথোপকথনে আমার অভিধানে লাইকখোর/কমেন্টসখোর নামের দুইটি নতুন শব্দ যুক্ত হলো। এভাবেইতো প্রতিনিয়ত আমরা আমাদের শব্দের ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করছি নাকি??