ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 
bd+women+cric1

পাকিস্তানিরা আজও ১৯৭১-এর পরাজয়ের গ্লানি ভুলতে পারেনি তা বোঝা যায় নানা উপলক্ষে বিশেষ করে ক্রিকেট খেলাকে নিয়ে বাংলাদেশের উত্থান বা পরাজয়ের প্রতিটি স্তরে তাদের উপহাস ও সমালোচনা দেখে । ১৯৭১ সালে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে চরমভাবে পরাজয়ের পর কিভাবে বাংলাদেশের ক্ষতি করা যায় সে চেষ্টায় মেতে রয়েছে পাকিস্তান। তাই তাদের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসের মাধ্যমে বাংলাদেশ ধ্বংসের চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে দেশটি। কেননা, পাকিস্তান থেকে আলাদা হওয়ার পর উন্নয়নের প্রতিটি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পাকিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়ে গেছে। অথচ পাকিস্তান দিনে দিনে একটি ব্যর্থরারোষ্ট্রে পরিনত হচ্ছে।

সর্বশেষ বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দলকে হারানোর পর টেলিভিশনে উপহাস করার ঘটনা দেশপ্রিয় প্রতিটি বাঙালির মনে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্টেটাস দিয়ে শত শত মানুষ প্রতিবাদ জানিয়েছে। পাকি টিভি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দলকে রীতিমত অপমান করা হয়েছে। সম্প্রতি পাকিস্তানের নারী ক্রিকেট দলের কাছে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দলের হারের বিষয়টি নিয়ে হাস্যকৌতুকের আয়োজন করেছে পাকিস্তানের মিডিয়ায়। এ প্রসংগে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে যে, ৭ অক্টোবর ২০১৫ বুধবার রাত এগারোটায় এ ধরনের একটি ফান ভিডিও সম্প্রচার করে পাকিস্তানের জিও টিভি। যেনতেন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের জার্সি পরিয়ে দুই নারীকে উপস্থিত করা হয় বাংলাদেশ নিয়ে ব্যঙ্গ করার জন্যই।

উপস্থাপক বাংলাদেশের জার্সি পরিহিতকে সালমা খাতুন (বাংলাদেশের অধিনায়ক) হিসেবে মঞ্চে ডাকেন। দেখা যায়, ওই সালমা খাতুন কাঁদতে কাঁদতে মঞ্চে আসেন। উপস্থাপক তখন তাকে জিজ্ঞেস করেন, খেলায় তো হার-জিৎ থাকেই। এতে কান্নার কি আছে? ওই নারীশিল্পী উত্তর দেন, শুধু হেরে যাওয়ার জন্য কাঁদছি না। তোমরা আমাদের ডেকে এনে কেন হারালে সেজন্য কাঁদছি। উপস্থাপক এবার উপহাস করে বলেন, আমরা ভিআইপি নিরাপত্তা দিয়ে তোমাদের নিয়ে এসেছি। অথচ তোমাকে দেখলে মনে হয় তোমার সোশ্যাল সিকিউরিটিও নেই।

উপস্থাপক বাংলাদেশের জার্সি পরিহিত আরেক শিল্পীর সানগ্লাস দেখিয়ে বলেন, তোমার সানগ্লাস দেখলে মনে হয় তুমি বাংলাদেশ থেকে হাওয়াই জাহাজে (বিমান) করে আসোনি। বাইক চালিয়ে এসেছ। এর পর আবার জিজ্ঞ্যেস করেন, তুমি এত ভাল উর্দু বল কেমনে? উত্তরে সালমা খাতুনের অভিনয়কারী শিল্পী বলেন, ফেসবুকে আমার অনেক পাকিস্তানী বন্ধু আছে তো, তাই। এ সময় পাশের পাকিস্তানী ক্যাপ্টেনের ভূমিকায় অভিনয়কারী শিল্পী দর্শকদের দিকে তাকিয়ে বলেন, ‘উনি ফেসবুকে তার ছবি দেননি’ এ সময় হাততালি দিয়ে হেসে ওঠেন দর্শক। এই ঠাট্টার অর্থ ফেসবুকে ছবি থাকলে পাকিস্তানী ছেলেদের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব হতো না। এভাবেই নানান রকম অপমানজনক কথায় পূর্ণ ছিল অনুষ্ঠানের সেই সেশনটি।

এর আগেও ভারতকে বাংলাদেশ হারানোর পর ওই ম্যাচটি নিয়ে ষড়যন্ত্রের গন্ধ খুঁজেছিল পাকি টিভি চ্যানেল দুনিয়া নিউজ। চ্যানেলটির ক্রিকেট পর্যালোচনামূলক ‘ইয়ে হ্যায় ক্রিকেট দিওয়াঙ্গি’ অনুষ্ঠানে এ সংক্রান্ত প্রশ্নে পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার সরফরাজ নেওয়াজ আলী বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ভারত ইচ্ছা করে হেরেছে । পাকিস্তানকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলতে না দেয়ার জন্যই এমনটি করেছে ভারত। অনুষ্ঠানের উপস্থাপিকা আলিনা ফারুক টেলিফোনে সরফরাজ নেওয়াজ আলীকে প্রশ্ন করেন, বাংলাদেশ কি সাবধান হয়ে গেছে, নাকি ভারত চাল দিয়েছে (কৌশল করছে)? পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র হচ্ছে না তো? জবাবে সরফরাজ বলেন, ষড়যন্ত্র অবশ্যই হচ্ছে। কারণ, ভারত চায় না পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে কোয়ালিফাই করুক (খেলুক)। এ কারণে একটি বিশেষ মিটিং হয়েছে। দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর, ভারত ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর যে বৈঠক হয়েছে। যেভাবে মোদি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বলেছেন, তখনই আসলে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয়।

এরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঝড় ওঠে পাকিস্তানের আরেক সাবেক ক্রিকেটার রমিজ রাজার একটি পোস্ট। যাকে বাংলাদেশের মানুষ এখন চেনে ‘রমিজ্জা’ হিসেবেই। এক পোস্টে রমিজ্জা বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ওয়ানডে নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন। রমিজ্জা তার টুইটার এ্যাকাউন্টে লিখেছিলেন, আইসিসি দয়া করে বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় ও তৃতীয় ওয়ানডে তদন্ত করুন। কারণ আমার বিশ্বাস বাংলাদেশকে চ্যাম্পিয়ন্স লীগে খেলানোর জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট কর্মকর্তাদের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি হয়েছে। বাংলাদেশকে সব সময় তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা রমিজের একটা বদ অভ্যাসে পরিণত হয়েছে বহুদিন থেকেই। এর আগেও একাধিকবার নানা মন্তব্যে বাংলাদেশকে অপমান করেছে রমিজ্জা। বাংলাদেশের ক্রিকেটার এনামুল হক বিজয়ের নাম নিয়ে উপহাস করেছিল রমিজ্জা। খেলা চলাকালীন রমিজ্জা বলেছিল, বিজয়? এটা আবার কেমন নাম? এ সময় তার পাশে বসা ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী রমিজ্জার আচরণের কৌশলে প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছিলেন, কেন? বিজয় মানে হচ্ছে ‘ভিক্টরি’। বিশ্বকাপের বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের মধ্যকার ম্যাচে বাংলাদেশকে হেয় করে রমিজ রাজার ধারাভাষ্যে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের টাইগার সমর্থক। দাবি উঠেছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) কমেন্টেটর প্যানেল থেকে রমিজকে বহিষ্কারের। ওই ঘটনার পর থেকেই ফেসবুক আর টুইটারে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ‘ব্যান রমিজ রাজা’।অথচ মাত্র কিছুদিন আগে পাকিস্তানের জাতীয় ক্রিকেট দলকে বাংলাওয়াশ করলেও এ নিয়ে বাংলাদেশের বিজয় উল্লাসে কোন ধরনের নীচু মানসিকতার পরিচয় দেয়া হয়নি। কোথাও কোনভাবে পাকিস্তানী দলকে উপহাস করা হয়নি।

লেখার শেষ পর্যায়ে পাকিদের বলে দিতে চাই। টাইগাররা মাত্র কিছুদিন আগে যেভাবে পাকিদের বাংলাওয়াস করেছে, একদিন আমাদের নারী ক্রিকেটারাও একদিন পাকি নারী দলকে বাংলাওয়াস করবে সেদিন বেশি দেরি নয়। আর পাকিদের একদিন বাংলাওয়াস করেই পাকিদের এই উদ্ধ্বত্তের জবাব দেবে। শুধু খেলায় নয় যে কোন বিষয়ে আমরা এখন পাকিস্তান থেকে অনেক অনেক এগিয়ে। যতই ষড়যন্ত্র কর কাজ হবেনা পাকিরা!