ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

জ্বালাও পোড়াও এর মতো ধ্বংসাত্মক রাজনীতি ও হরতালের মতো ভোতা অস্ত্রের অসারতা শেষ পর্যন্ত বোঝতে পেরে বেগম খালেদা জিয়া আপাততঃ অহিংস আন্দোলনের পথে ফিরে এসেছেন সেজন্য বিএনপি তথা ১৮ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ধন্যবাদ জানাই। কেননা বেগম খালেদা জিয়া দেরিতে হলেও হয়ত বুঝতে পেরেছেন, জ্বালাও. পোড়াও আর হরতালের মতো ধ্বংসাত্বক কর্মসূচির মাধ্যমে কেবল জনগণের ভোগান্তিই বাড়বে কিন্তু আওয়ামী লীগের মতো তৃণমূলে বিস্তৃত দলকে বিব্রত করা গেলেও ক্ষমতা থেকে হটানো যাবে না; এতে বরং দল ও জোটের শক্তি ক্ষয় হবে এবং সরকারের ধরপাকড়ে দল নেতৃত্ব শূন্য হয়ে যাবে। তা ছাড়া ব্যারিস্টার মওদুদের মতো সুবিধাবাদী চরিত্রের লোকের ওপর আর কতটুকুই নির্ভর করা যাবে? এতোদিন মওদুদ দলে অনেকটা নিষ্ক্রিয় থাকলেও হিলারির ঢাকা ঢু মেরে যাওয়ার পর তিনি হয়ত বোঝতে পেরেছেন যে, আগামীতে হয়ত বিএনপি তথা ১৮ দলীয় জোট ক্ষমতায় আসবে, তাই আগেভাগে অর্থাৎ নেতা শূন্যতার সুযোগে দলে অধিক সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। তাঁর মতো লোকদের ওপর তো আর সবসময় বিশ্বাস রাখা যায় না। তাই হয়ত সব কিছু বিবেচনা করে গতকাল ১৭ মে (২০১২) ঘোষিত কর্মসূচিতে হরতাল কর্মসূচি রাখেননি। এই কারণে বেগম জিয়া সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। একই সাথে তাঁর কাছে বিনীত অনুরোধ হরতালের মতো নেতিবাচক কর্মসূচিতে অযথা শক্তি ক্ষয় না করে আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিন; নির্বাচনে জিতে যে ই ক্ষমতায় আসবে তাদেরকেই আমরা স্বাগত জানাবো।