ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

ইন্ডিয়ান আইপিএলের আদলে গড়া বিএপিএল উদ্বোধন করলেন রাষ্ট্রপতি মো: জিল্লুর রহমান। এর উদ্বোধনী আনুষ্ঠানে জমকালো কিছু নাচ গান থাকবে সেটি সবাই অনুমান করেছিল। কিন্তু সে অনুষ্ঠানটি ভারতীয় নৃত্য শিল্পী দ্বারা বাংলাদেশী সংস্কৃতির বিকৃত রুপ নিবে সেটি কি কেউ ভেবেছিল? বর্তমানে ভারতে অর্ধনগ্ন শিল্পীদের দিয়ে যে নৃত্য পরিবেশন করা হয় তা নিয়ে ভারতেই বিতর্ক আছে। এসব নৃত্য ও পোশাক ভারতের কোন অঞ্চলের বা কখন ছিল তা ভারতের সংস্কৃতবোদ্ধারা বলতে পারছে না। অথচ ভাষা আন্দোলনের পবিত্র এই মাসে বিপিএল কর্মকর্তারা এই কাজটি বাংলাদেশে করলেন। এখন যদি কেউ প্রশ্ন করে যে, তাহলে কি এই কাজটি কর্মকর্তারা পরিকল্পিতভাবেই করেছেন। তাহলে কি তার সন্দেহটি অমূলক হবে? আবার এমন একটি অনুষ্ঠান রাষ্ট্রপতিকে দিয়ে উদ্বোধন করা হয়েছে। যার মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতিই দেয়া হয়েছে। যেহেতু বিপিএল বাংলাদেশের নিজস্ব একটি আলোচিত খেলা। বিশ্বের অনেক ক্রিকেট প্রেমী এই অনুষ্ঠানটি দেখবে। তাই এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কি বাংলাদেশী শিল্পীদের দ্বারা নিজস্ব সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বিশ্ববাসীকে দেখানো যেতো না ? বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার এটি একটি সুযোগ ছিল। আর এই অনুষ্ঠানে হিন্দি গান নাচের মাধ্যমে বিশ্ববাসীকে বোঝানো হয়েছে শুধুমাত্র বাংলাদেশী গান ও নাচের মাধ্যমে একটি অনুষ্ঠানের পরিপূর্ণতা আনা যায় না। বিদেশী সাংস্কৃতিক আগ্রাসন থেকে দেশকে বাঁচাতে হলে সাধারণ নাগরিকদেরই এগিয়ে আসতে হবে। দেশের যারা নীতি নির্ধারক তাদের দ্বারা দেশ সংস্কৃতি কোনটাই নিরাপদ নয়।