ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

 
connectfirm

 

আগে তো শুধু মাত্র কোম্পানি, প্রতিষ্ঠান, অর্গানাইজেশন এর কেবল ওয়েব সাইট থাকতো কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশি বিভিন্ন প্রফেশনাল যেমন ডাক্তার, ইঙ্গিনিয়ার, কবি সাহত্যিক, আইনজীবী, ফটোগ্রাফার, সাংবাদিক, উদ্যোক্তারা তাদের ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট বা পোর্টফলিও তৈরি করাচ্ছেন। আবার ফ্রিল্যান্সার বা ব্লগাররাও ফ্রি সার্ভিস বাদ দিয়ে নিজস্ব সাইটের দিকে ঝুঁকছেন। কারণ দেশে এখন অনেক গুলো আইটি কোম্পানি হয়েছে এবং ওয়েবসাইট তৈরির খরচটাও অনেকাংশে কমে গেছে।

কবি সাহিত্যিকেরা চাইছেন তাদের বই, লেখা সমগ্র নিজস্ব ওয়েবসাইটে রাখবেন, সেখান থেকে বই বিক্রি হবে মানুষ জানবে তাকে।
বিদেশি ডাক্তারদের দেখাদেখি আমাদের দেশের ডাক্তাররাও পোর্টফোলিও সাইট তৈরি করছেন এবং নিজের দক্ষতাকে প্রকাশ করছেন। অনলাইনে সিরিয়ালও নিচ্ছেন।

প্রোকৌশলীরা তৈরি করছেন গবেষণা ধর্মী নিজস্ব ওয়েবসাইট। সেটা তার ল্যাব বা সংগ্রহশালা এর মত কাজ করছে। ফলে সেটা ছড়িয়ে পড়ছে আন্তর্জাতিক ভাবে।

অনেক তরুণ আইনজীবিকে দেখা যাচ্ছে তারা তাদের নিজস্ব সাইটে আইনি বিষয়ে লেখালেখি করছেন মানুষকে আইন বিষয়ে সচেতন করছেন, আইনি অধিকার গুলো জানিয়ে দিচ্ছেন। উন্নত দেশগুলোতে টাকার বিনিময়ে আইনজীবির সাথে অনলাইন কনসালটেন্সিও চালু আছে।

সাংবাদিক বা ফটোগ্রাফাররা তাদের তোলা ছবি ওয়েবে শেয়ার করেন যাতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এইজন্য তারা নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করাচ্ছেন। অনেকে আবার তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যামে ছবি বিক্রিও করছেন। বর্তমানে নতুন উদ্যোক্তারা তো তাদের ব্যাবসাকে আগেই অনলাইনে প্রচার প্রসারের চিন্তা করে থাকেন। এজন্য তারা তাদের নিজস্ব niche site তৈরি করাচ্ছেন।

কয়েকটি আইটি কোম্পানির সাথে কথা বলে জানা গেল বরতমান সময়ের ট্রেন্ড সম্পর্কে – বাংলাদেশে বর্তমানে e-commerce ফাংশনালিটি ওয়েব সাইটের চাহিদা বেশি। ল্যান্ডিং পেজ তৈরির প্রবনাতাও অনেক বেশি। আর নাকি HTML5 দিয়ে ওয়েবসাইট করাটা যেন ওয়েবসাইট ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট জগতের হাল ফ্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

Connectfirm.com এর একজন ডিজিটাল মারকেটার জানালেন বিভিন্ন প্রফেশনালদের নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরির প্রবণতা বাড়ার কারন সম্পর্কে। তিনি বললেন, ডিজিটাল মারকেটিং করতে প্রথমে যা প্রয়োজন হয় তা হলো একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট তথা ইন্টারনেটে নিজস্ব একটি প্লাটফরম। আর ঐ সব ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটের বেশির ভাগই বাণিজ্যিক উদেশ্যে করা হচ্ছে। নিজের কর্ম, সার্ভিস বা পোডাক্টের বিবরণ তুলে ধরার জন্যই করা হচ্ছে আধুনিক এই সব ওয়েবসাইট গুলো। গর্বের বিষয় এই যে আমরা উন্নত প্রযুক্তির সাথে পাশাপাশি হাটতে না পারলেও পিছু পিছু হাটছি। আমরা গুটি গুটি পায়ে হেটে চলছি আধুনিকতার দিকে। এখন আমাদের দেশে অনলাইনে কেনাকাটা করা যায়, ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যাংকিং করা যায়, অনলাইনে ক্লাসও করা যায়।

দেশে ইন্টারনেটে ব্যাবহারকারীদের সংখ্যা প্রচুর বাড়ছে। এই বিপুল ইন্টারনেটে ব্যাবহারকারীদের কাছে মার্কেটিং করা ট্র্যাডিশনাল মার্কেটিং এর থেকে সহজ ইফেক্টিভ এবং তুলনামূলক কম খরচ। পত্র-পত্রিকা বা টিভি এড যতক্ষণ টাকা দেয়া হয় ততক্ষণ চলে, কিন্তু ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রচার-প্রচারণা কখনই শেষ হয় না। এজন্য বাংলাদেশি প্রফেশনালরা ডিজিটাল মার্কেটিং এর assets হিসাবে নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করাচ্ছেন।