ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বড় বড় হেডলাইন নিউজ— রাজধানীর মানুষজনের মনে আতংক । এটা কি তবে স্বাধীন দেশ নয়? আমার জন্মের পর হতে দেখছি বারবার রাজপথে আতংক আর আতংক। শুরুটা আরও আগেই। রক্ত ঝরেছে বারবার, কত রক্ত হলে রাজপথের ক্ষুধা মেটে? কেউ জানিনা বলেই আতংক সীমাহীন।

স্বাধীনতার পূর্বেকার ইতিহাস পড়তে গেলে দেখতে পাই তখন রাজপথে একটা লাশ পড়লেও সেই লাশের বেদনায় সারা দেশ ভীষণ কষ্টে জেগে উঠত। একটা রোষ ছড়িয়ে পড়ত। কিন্তু স্বাধীন হবার পর , লাখ শহীদের রক্ত বিলিয়ে দেয়ার পর এতগুলো বছর কেবল রাজনৈতিক প্রতিহিংসা আর ক্ষমতায় যাবার নষ্ট মানসিকতার কারনেই বারবার মানুষ লাশ হয়ে যাচ্ছে রাজপথে। আমাদের কিন্তু কোন ভাবান্তন নেই। সয়ে গেছে সেটা বোঝা যায়। তবে স্বাধীন হবার আনন্দে কি এই মূল্যবোধ, মানবতার মূল বীজ গুলো কি আমরা হারিয়ে ফেললাম ধীরে ধীরে?

এ যেন কোন ঘটনাই না। প্রতি সরকার আসবে, যাবার আগে আগে এমন লাশের হলি হবে —জনমনে আতংক বিরাজ করতে করতে কেউ কেউ একদিন স্ট্রোক করবে, হাসপাতালে নেয়ার আগেই যানজটে লাশ হবে। ..তবুও পুলিশের গুলির চেয়ে সেটা বোধহয় ভালো। নিজ জাতির হাতে মৃত্যু —এ কেমন স্বাধীনতা?

আন্দোলন আর প্রতিহত এই যেন মূখ্য কাজ দুইটি দলের। এই যেন পালা বদল করে আসে এক এক নির্বাচনের জনগণের বুকের উপর পা রেখে। আর আমরা জনগণ বারবার রক্ত দিচ্ছি কোন একদিন স্বাধীনতার পূর্নতা পাবার মিথ্যে বাসনায়। কিন্তু আর কত?

উত্তর নেই, কিন্তু আবার বোধহয় শুরু হচ্ছে, যেমন দেখেছিলাম আতংকিত আমজনতা সেই ১৯৯৬, ২০০৬-২০০৭ তেমন। আমরা কি তবে ভোট দিয়ে দিয়ে আওয়ামীলীগ আর বিএনপির কাছ থেকে আতংক কিনি?