ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

প্রথমে শুনেছিলাম অবরোধ তার পর সাথে যোগ হল হরতাল কি বিপন্ন হয়ে গেলো আমাদের জীবন মাঝখানে চলে এল পেট্রল বোমার এক কলঙ্কজনক অধ্যায় দুই এক দিন ধরে একটু শান্তিতে আছি কারন সকালে পেপারে নুতুন কোন পেট্রল বোমার আঘাতের খবর নেই কিন্তু হরতাল অবরোধ ও শেষ হয়নি আমাদের ছাত্ররা ও ঝিমিয়ে ঝিমিয়ে পরীক্ষা ও দিয়ে দিচ্ছেন দেশে মাঝে মাঝে ফোন করে জানতে চাইলে বলে সব কিছু চলছে কিসের হরতাল, আবার শুনি বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের কথা। তাহলে কি দেশ এখন আন্ডার কন্ট্রোল বলা যাবে নাকি আমরাই কন্ট্রোল হয়ে গেলাম ঠিক বুঝতে পারছি না। না কি হরতাল অবরোধ বন্দুক যুদ্ধ এগুলো প্রতিদিনের ডাল/ভাত ব্যপার হয়ে গেছে।

আজ থেকে বছর দুই বছর আগে আমার এর পাকিস্থানী কলিগ এর ট্রান্সফার হয়ে গেল ইরাক এ আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম তুমি ইরাকে কেন যাচ্ছ ওইখানে ত অনেক বোমা টোমা মারা হচ্ছে সে আমাকে বলল আমাদের পাকিস্থানে ত আরো বেশি বোমাবাজি হয় তাই ঠীক করেছি ঘরে বসে ও যে বাঁচতে পারব তার কোন গ্যারান্টি আছে নাকি তাই আমার কাছে ইরাক যাওয়াটা নর্মাল মনে হচ্ছে।

এই নরমাল কথাটা আমার কর্মস্থল আলজেরিয়াতে অনেক শুনে থাকি এখানে আমার মনে হয় অল এবনরমাল হচ্ছে নরমাল একবার আমার সাইটে একবার এক্সিডেন্ট এর এক লোকের মৃত্যু হলে সেখানে দেখলাম সবার মুখে একই শব্দ নরমাল।

তাই হরতাল, অবরোধ পেট্রল বোমা আমাদের কাছে আজব ধরনের নরমাল হয়ে গেছে।তাই হ্য়ত আমার এই ধরনের পদ্দতি ও এক দিন নরমাল হয়ে যাবে।

বাংলাদেশের সংবিধানের ৭-১ আছে প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ , জনগণের পক্ষে সেই ক্ষমতার প্রয়োগ এই সংবিধানের অধীনে কর্তিতে কারয৴কর হইবে।

আজকের পরিস্থিতি দেখে সংবিধানের এই ধারা হাস্যকর মনে হচ্ছে। এই নরমাল এবং হাস্যকর উপায় থেকে বাঁচতে হলে দরকার প্রতিবাদ আমার মনে হয় সব ধরনের প্রতিবাদ হয়ে গেছে
মানববন্ধন,অন্বেষণ, ঝাড়ুমিছিল,আন্তর্জাতিক চাপ, হিজড়া মিছিল, কাঁপনের কাপড় পড়ে মিছিল, মোমবাতি প্রজ্জলন,পশু মিছিল, সবই তো করা শেষ কিছুই ত তদের কর্ণ কুহরে প্রবেশ করছে না কেউ এক থেকে দেড় এ যাবে না আর কেউ দুই থেকে দেড় এ আসবে না আর সব নাকি আমাদের মানে জনগণের ভালর জন্য এক জনের জেনারেশেন আমেরিকাতে আর এক জনের জেনারেশন লন্ডন, মালয়শিয়াতে আরামে শিক্ষা নিচ্ছেন আর আমাদের বারটা বাজাচ্ছেন কি সুন্দর মায়া কান্না আমাদের জন্য।

তাই আমার মনে হয় এইবার উলঙ্গ হয়ে প্রতিবাদ করা ছাড়া আর উপায় নাই, মানবিক ভাষা যাহারা বুঝে না তাদের জন্য এই ধরনের প্রতিবাদ এর দরকার হয়ে পড়েছে।এই ধরনের শব্দ লিখতে হচ্ছে বলে আমার লজ্জা লাগিতেছে তবু ও আশা যদি তাদের লজ্জা হয়। এ ছাড়া আমার আর কোন প্রতিবাদের ভাষা নাই।

ধন্যবাদ সবাইকে

মান্নান

আলজেরিয়া থেকে।