ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

index

পৃথিবীতে অনলাইন গণমাধ্যমের জয়জয়কার । বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই । ময়মনসিংহে এর ভিন্নতা এখনও লক্ষ করা যায় । ময়মনসিংহ থেকে ময়মনসিংহ বার্তা , ময়মনসিংহ নিউজ নামের দু’টি অনলাইন পত্রিকা প্রকাশ হয় । অপরদিকে প্রিন্ট পত্রিকা দৈনিক জাহান , আজকের খবর, আজকের বাংলাদেশ, দৈনিক স্বজন, দৈনিক মাটি ও মানুষ, আজকের ময়মনসিংহ, দৈনিক স্বদেশ সংবাদ, দৈনিক দিগন্ত বাংলা, দৈনিক কালের আলো, দৈনিক লোকলোকান্তর, জনতার কণ্ঠস্বর, দৈনিক হৃদয়ের বাণী, দৈনিক দেশের খবরসহ আরো অনেক দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক ও মাসিক পত্রিকা প্রকাশিত হয় । এই স্থানীয় পত্রিকাগুলির পাঠক ময়মনসিংহ কেন্দ্রিক । অপরদিকে অনলাইন পত্রিকার পাঠক কেবল ময়মনসিংহে সীমাবদ্ধ নয় । সারা বিশ্বে ।

বাংলাদেশের শীর্ষ পত্রিকা, ইত্তেফাক, প্রথম আলো, যুগান্তর, কালের কন্ঠ, সমকাল, জনকণ্ঠসহ ঢাকা থেকে কমপক্ষে ৫০টি প্রিন্ট পত্রিকা ময়মনসিংহে আসে । প্রিন্ট পত্রিকাগুলিতে পুরনো খবরের সম্ভার । তার পরও মানুষ কেন পড়ে তা বুঝতে বেশী কষ্ট হয় না । আমাদের ময়মনসিংহের পাঠকরা এখনও ইন্টারনেট প্রযুক্তির সাথে পরিচিত হননি । অবসরপ্রাপ্ত লোকদের নির্ভর প্রিন্ট পত্রিকা । স্থানীয় প্রিন্ট পত্রিকাগুলির যে সুদিন তাও নয় , তাদের মূল আয় কিছু বিজ্ঞাপন । আবার বড় আয় রিপোর্ট । কোন ব্যক্তি বা প্রতিস্ঠানের বিরুদ্ধে মনগড়া রিপোর্ট প্রকাশ করে প্রতিবাদ ছাপিয়ে ভালো আয় হয় । এই আয় না হলে স্টাফদের খরচ উঠানো দু:সাধ্য হয়ে পড়ে ।

একটি প্রিন্ট পত্রিকার সাথে জড়িত স্টাফের সংখ্যা নেহায়েত কম নয় । কম করে হলেও ৫/৭ জন তারও বেশী । পক্ষান্তরে অনলাইন পত্রিকার স্টাফ ২/১ জন । আপডেট দেয়ার একজন আর সম্পাদক । তারপরও অনলাইন পত্রিকা কর্তৃপক্ষ ভালো চলতে পারেন না । কারো বিরুদ্ধে রিপোর্ট প্রকাশ হলে প্রতিবাদ প্রকাশ হয়েছে এমন ঘটনা ঘটেনি । অনলাইন পত্রিকাকে ময়মনসিংহে নেহায়েৎ হাসি তামাশার পত্রিকা বলে মনে করে থাকেন । এর জন্য প্রিন্ট পত্রিকা ওয়ালারাই দায়ী বলে মনে করা হয় । এমন ঘটনাও ঘটেছে , অনলাইন পত্রিকার খবর প্রিন্ট পত্রিকায় প্রতিবাদ ছাপানো হয়েছে । আমি ময়মনসিংহ বার্তার সম্পাদক । দুই বছর পার হয়েছে পত্রিকা প্রকাশের । আজো একটি টাকা কামাই হয়নি পত্রিকা থেকে । যদিও নেশায় পত্রিকাটি চালাই । স্টাফ নেই । নিজেই আপডেট দেই । মাঝে মধ্যে সময়ের অভাবে যখন আপডেট বন্ধ করলে সাংবাদিকদের ফোন আর ফোন । তারপরও প্রত্রিকা চালিয়ে যাচ্ছি । পৃথিবীর বহু দেশে প্রিন্ট ত্রিকা বন্ধ হয়ে গেছে । তারা চালু করেছে অনলাইন । বাংলাদেশের প্রিন্ট পত্রিকাগুলি অনলাইন ভার্সন চালু করেছে । তখন মনে হয় অবশ্যই একদিন আমার ভ্যাগ্য খুলবে । সেই প্রতিক্ষায় ।