ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

bnp
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, দেশের মানুষ অত্যাচারী, অগতান্ত্রিক ও অনির্বাচিত সরকারের অধীনে জীবন-যাপন করছে। এ সরকার ক্ষমতার লোভে বা মোহে ক্ষমতা আটকে ধরে রাখতে চায়। তিনি বলেন, এ সরকার বহু খুন, গুম, অত্যাচার-নির্যাতন করেছে এখন তারা আর ক্ষমতায় থাকতে পারে না।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, প্রতিহিংসা নয় দেশের প্রচলিত আইন যদি কার্যকর হয় আওয়ামীলীগের বহু নেতা, মন্ত্রী, এমপির বিরুদ্ধে অনেক বড় বড় অভিযোগ আসবে। সাজা পেতে হবে তাদেরকে। সে কারনে তারা ক্ষমতা ছাড়তে চায় না। কিন্তু না চাইলেই কি পারা যায়। আইয়ুব খান পারে নাই, এরশাদ পারে নাই, তারাও পারবে না। এ সময় তিনি আরো বলেন, এখন কত দ্রুত এ সরকারকে বিদায় করা যাবে। তা নির্ভর করছে দলীয় নেতা-কর্মীদের উপর। নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমেই জনগনের দাবী মানতে এ সরকারকে বাধ্য করতে হবে। জনগনের দাবী হচ্ছে- রক্ত দিয়ে স্বাধীন করা বাংলাদেশে আমি যাকে নির্বাচিত করবো, সেই রাষ্ট্র ক্ষমতা পরিচালনা করতে পারবে। কায়দা কৌশল করে তিন’শর মধ্যে ১৫৩ জনকে বিজয়ী হয়ে ক্ষমতায় থাকা যাবে না। দেশের মানুষ চায় সকল দলের অংশ গ্রহনে একটি প্রতিযোগীতামূলক নির্বাচন। সে নির্বাচনে দেশের মানুষ যাকে ভোট দিবে, যারাই নির্বাচিত হবে তারাই দেশ চালাবে। এ দাবীতেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলন চলছে এবং অবশ্যই এ আন্দোলন সফল হবে। আমি আপনাদের সবাইকে সে আন্দোলন সফল করার জন্য সঠিক ভাবে জোটবদ্ধ ভাবে কাজ করার আহবান জানাচ্ছি।

নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, আন্দোলন করে সরকার পতন ঘটানো, নিজের দলকে ক্ষমতায় বসানো আমাদের টার্গেট নয়। টার্গেট হচ্ছে জনগনের সরকারকে ক্ষমতায় বসানোর মাধ্যমে আমাদের ন্যায্য দাবী দাওয়া আদায় করা। আমরা আন্দোলন করছি গনতন্ত্রের জন্য, ন্যায্য দাবী আদায়ের জন্য, আন্দোলন করছি নিজের স্বার্থে, পরিবারের সদস্যদের স্বার্থে এবং ভবিষৎ বংশদেরদের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে। এ আন্দোলন ব্যার্র্থ হতে দেয়া যাবে না। কাজেই ঐক্যবব্ধ আন্দোলন করে অনির্বাচিত অত্যাচারী সরকারের হাত থেকে দেশকে এবং দেশের মানুষকে রক্ষা করুন।

আজ শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহ শহরের জিমনেশিয়ামে বৃহত্তর ময়মনসিংহের শ্রমিক দলের প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় ময়মনসিংহ জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি আবু সাঈদের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক মফিদুল ইসলাম মোহনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব:) মাহমুদুল হাসান, ড.ওসমান ফারুক, ডা: এজেডএম জাহিদ হোসেন, বিএনপির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক একেএম মোশাররফ হোসেন, সহ প্রচার সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের সিনিয়র সহ সভাপতি শফিউল ইসলাম প্রমূখ। এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় শ্রমিক দল সভাপতি আনোয়ার হোসেন। এতে প্রধান বক্তা কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম খান নাসিম। এ সময় বৃহত্তর ময়মনসিংহের বিভিন্ন জেলার সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ড.ওসমান ফারুক বলেন, জাতীয়তাবাদী শক্তিকে নির্মূল করতে এ সরকার শুকুনের মত আক্রমন করছে। আন্দোলনের মাধ্যমে এদের প্রতিহত করে এ সরকারকে ক্ষমতা থেকে বিদায় করতে হবে।

এ সময় দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহবান জানিয়ে ডা: এজেডএম জাহিদ হোসেন বলেন, আগামী দিনে দেশনেত্রী বেগম আলেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলনের মাধ্যমে অগনতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে। এজন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। #

 

auamelig

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন এর বাহিনী উপজেলা পরিষদে হামলা চালিয়েছে বলে উপজেলা আওয়ামীলীগ সংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করেছেন। ময়মনসিংহ শহরের তাজ বেঙ্গল কমিউনিটি সেন্টারে আজ শনিবার ৬ সেপ্টেম্বর সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করে এ অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো: আব্দুল হাকিম। সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র মো: হাবিবুর রহমান হাবিব। এসময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি মো: রফিকুল ইসলাম বুলবুল, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মো: বজলুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক মো: রফিকুল ইসলাম খান, উপজেলা আওয়ামীলীগ সদস্য মো: বদরুল আলম প্রদীপ, সরিষা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: নুরুল ইসলাম, উচাখিলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: মঞ্জুরুল হক, বড়হিত ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সার্জেন্ট (অব:) মো: হাবিবুল্লাহ ভুঞা হবি, তারুন্দিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো: গোলাম মোস্তফা কামাল, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মো: সাফায়েত হোসেন ভুঞা, সাধারন সম্পাদক মো: আ: ছালাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: মাহবুবুর রহমান, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মো: আমিনুল হক কামাল, যুগ্ন আহবায়ক মো: শরীফুজ্জামান রানা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো: আব্দুল হাকিম বলেন, বিগত ৩১ অক্টোবরের আইন শৃংখলা কমিটির সভার সিন্ধান্ত মোতাবেক ২রা সেপ্টেম্বর উপজেলা সদরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য উপজেলা প্রশাসন পদক্ষেপ নেয়। উপজেলা প্রশাসনের পদক্ষেপের বিরোধীতা করে ৩ সেপ্টেম্বর কতিপয় স্বার্থন্বেশী মহল উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে বিধি বহি:ভুত ভাবে প্রবেশ করে নগ্ন হামলা করে। এদের ২/৩ জন আওয়ামীলীগের বিপদগামী সদস্য বটে। বাকিরা সম্মানিত উপজেলা চেয়ারম্যন মাহমুদ হাসান সুমন বাহিনীর সদস্যবৃন্দ। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেছেন। সাংবাদিক সম্মেলনে দাবী করা হয়, উপজেলা আওয়ামীলীগের ৭টি সহযোগী সংগঠন থাকার পরও উনি উনার (এসবি) বাহিনী ইউনিয়ন পর্যায়ে গঠন করে যাচ্ছেন। যারা উক্ত নগ্ন হামলাকারী তারা উপজেলা পরিষদের বর্তমান সম্মানিত চেয়ারম্যানের নিজস্ব বাহিনী। কিন্তু ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রকাশিত সংবাদটি এক তরফা ভাবে উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিষয়ে আলোকপাত করেছেন। কিন্তু উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠন এ বিষয়ের সাথে আদৌও জড়িত নহে। সাংবাদিক সম্মেলনে আরো দাবী করা হয়, গত ১মার্চ সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পাট বাজাস্থ দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের জরুরী মতবিনিময় সভা করছিলেন। সভা চলাকালীন সময়ে সুমন বাহিনী দলীয় কার্যালয়ে অন্যায় ভাবে প্রবেশ করে চেয়ার ভাংচোর করে ও অস্ত্র সস্ত্রের মহড়া দেয়। সাংবাদিক সম্মেলনে দাবী করা হয়, গত সংসদ নির্বাচনের পর থেকে জাতীয় কর্মসুচী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের নিয়মিত সকল কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে সম্মানিত চেয়ারম্যন মাহমুদ হাসান সুমন ও বিপথগামী ২/৩ জন নেতার সহযোগিতায় নিজস্ব বাহিনী নিয়ে পাল্টা কর্মসুচী দিয়ে সার্বিক পরিস্থিতির অবনতি ও ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। ঘটনার সুষ্টু তদন্তের জন্য উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাগনকে দিয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠনের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রীর নিকট আবেদন জানানো হয়েছে।