ক্যাটেগরিঃ কৃষি

baseraj

মুক্তাগাছায় বাঁশিরাজ। বাংলাদেশ তথা সমগ্র বিশ্বের ঐতিহ্য বাঁশিরাজ চাল। আধুনিক উচ্চ ফলনশীল ধান চাষের সাথে প্রতিযোগীতায় টিকতে না পারায় মুক্তাগাছাসহ ময়মনসিংহে স্থানীয় জাতের এই বাঁশিরাজ ধান চাষ বছর বছর কমছে । একসময় মুক্তাগাছার অধিকাংশ জমিতেই মোটা ও চিকন উভয় জাতের বাঁশিরাজ ধানের চাষ হতো । বাঁশিরাজ ধানের চাল বর্ণে হালকা লাল । এর চালের ভাত খেতে খুবই সুস্বাদু । মুক্তাগাছা এবং তৎসংলগ্ন তথা বৃহত্তর ময়মনসিংহ ছাড়া বাংলাদেশের আর কোথাও এর চাষ হয় না । সারাবছর বাঁশিরাজ চাল খান এমন ব্যক্তিরা জানান, এই চাল সবজী সিদ্ধ দিয়ে খেলে ভোজনে পরম তৃপ্তি পাওয়া যায় । তাছাড়া ভাতের স্বাদের কারণে উপকরণ হিসাবে তরি তরকারী , মাছ মাংস কম খেলেও তৃপ্তি আসে । বাঁশিরাজ চাল বিক্রেতারা জানান, ভোজন রসিকরা অগ্রিম টাকা দিয়ে এই চাল বুকিং করে রাখেন । বাজরে মোটা চাল ৪০-৪২ টাকা এবং চিকন চাল ৫০- ৫২ টাকা সোয়া কেজি দরে বিক্রি হয়ে থাকে । কৃষি অফিস সূত্র জানায় , আগে মুক্তাগাছায় বেশী হলেও এখন এই ধানের চাষ হয় ৫ হাজার হেক্টরে । কৃষকরা জানান, বাঁশিরাজ ধানকে হাইব্রীডে রুপান্তর করা হলে প্রতিযোগীতায় টিকিয়ে রাখা সম্ভব ।