ক্যাটেগরিঃ জনজীবন

horse

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার পাড়াটঙ্গির বাসিন্দা নিজাম উদ্দিনের (৬৫) বাহন ঘোড়া । ঘোড়ায় চড়ে তিনি মুক্তাগাছাসহ আশপাশের জেলা উপজেলাগুলোতে যাতায়াত করে থাকেন । এখনও ঘোড়ার ব্যবহার করে বাপ দাদার ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন তিনি । মুক্তাগাছার জমিদারদের সাথে নিজাম উদ্দিনের বাবা দাদার ছিল খুবই সখ্যতা । জমিদারগণ হাতিতে চড়ে চলাফেরা করতেন । আর তার বাবা দাদা চড়তেন ঘোড়ায় । আজ থেকে ৫৫ বছর আগে যখন নিজাম উদ্দিনের বয়স মাত্র ১০ বছর তখন বাবার কাছ থেকে রপ্ত করেন ঘোড়া চলানো । সেই থেকে তিনি ঘোড়া চালান । এ পর্যন্ত প্রায় ২ ডজন ঘোড়া ব্যবহার করেছেন তিনি । সর্বশেষ ২০১২ সালে ব্যবহৃত ঘোড়াটির মৃত্যু হলে জাপানি হোন্ডা কোম্পানীর একটি মোটর সাইকেল ক্রয় করেন । ছোট বেলা থেকে গড়ে উঠা অভ্যাস ঘোড়া চালানো তাই হোন্ডা চলাতে ভালো লাগছিলো না। চলতি সপ্তাহে হোন্ডাটি বিক্রি করে পৌনে ২ লাখ টাকায় ক্রয় করেছেন ভারতীয় জাতের একটি ঘোড়া । ঘোড়া চালিয়ে এখন তিনি স্বাচ্ছন্দ ভোগ করছেন । ঘোড়ার খাওয়া বাবদ প্রতিদিন ১শ’ টাকা খরচ হয় । ২ দিনেই ঘোড়াটি তার ভক্ত হয়ে গেছে ।

 

জানা যায় ,পৃথিবীতে যে সমস্ত বিশ্বস্ত ও প্রভূভক্ত প্রাণী রয়েছে তার মধ্যে ঘোড়া অন্যতম । প্রাচীনকালে ঘোড়া বিশ্বস্ত এবং জীবন রক্ষাকারী যুদ্ধ সহযোগী হিসাবে প্রতিপালিত হতো । প্রাচীন সভ্যতার বিলোপ আধুনিক সভ্যতার ক্রমবিকাশে কমে যাচ্ছে ঘোড়া । গাণিতিক অশ্বক্ষমতার উদ্ভাবন হয় ঘোড়া থেকে। বাংলাদেশে ঘোড়ার গাড়ির প্রচলন হয় ১৮৫৬ সালে । বর্তমানে ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনে ৩২টি এবং সারদা পুলিশ একাডেমিতে ৪০টি ঘোড়া রয়েছে । জাতীয় ক্রীড়া , স্বাধীনতা দিবস , বিজয় দিবস , বাৎসরিক কুচকাওয়াজ , শ্রেষ্ঠ সৈনিকদের পদক বিতরণ প্রভৃতি অনুষ্ঠানে এসব ঘোড়া দিয়ে নানা রকম ক্রীড়া কৌশল প্রদর্শন করা হয় । নিজাম উদ্দিন জানান , যান্ত্রিক সভ্যতায় বিভিন্ন যানবাহন ঘোড়াকে পেছনে ফেলে দিয়েছে । আমার ঘোড়া চালানো দেখে নতুন প্রজস্মরা জানবে প্রাচীন লোক ঐতিহ্যের কথা ।