ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 
rauson

ময়মনসিংহে পূজামন্ডপে রওশন এরশাদ। আজ শনিবার ময়মনসিংহের কৃতি সন্তান বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি ময়মনসিংহ শহরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন । পরিদর্শন কালে তিনি বলেন, আমরা একই সঙ্গে যার যার মতো ঈদ ও পূজা পালন করে আসছি। এখানে নেই কোন ভেদাভেদ হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান পরস্পরের মাঝে মধুর সম্পর্ক। শহরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন কালে দুর্গা বাড়ী মন্দীরে অনুষ্ঠিত এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে রওশন এরশাদ বলেন “সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ”। দেবী দুর্গার বাণীকে অনুসরণ করে পৃথিবী থেকে অপশক্তি দূর হউক। আর এই শান্তির বাণী পৌছে যাবে ঘরে ঘরে পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য সকলের সহযোগীতা চেয়েছেন। পাশাপাশি পূজা মন্ডপ পরির্দশন কালে মন্ডপ ও আয়োজকদের শুভেচ্ছা জানান।

পরিদর্শন যাত্রায় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী, পুলিশ সুপার মইনুল হক, এম.পি সালাহ উদ্দিন মুক্তি, জেলা জাপা এর সহ-সভাপতি এড: সোহরাব উদ্দিন, জেলা জাপার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আহম্মেদ, জেলা জাপার সাংগঠনিক সম্পাদক মোশারফ হোসেন, জেলা জাপার দপ্তর সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, জেলা জাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরিকুল ইসলাম খোকন, জেলা জাতীয় ছাত্র সমাজ এর সভাপতি ওয়াহিদুল জামান আরজু, জেলা জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি স্বপন মন্ডল, জেলা জাতীয় যুব সংহতির সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন হারুন, জেলা জাতীয় ছাত্র সমাজ এর সাধারণ সম্পাদক সাবিবর হোসনে বিল্লাল, জেলা জাতীয় স্বেচ্ছা সেবক পার্টির সভাপতি হোসেন আলী সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। রওশন এরশাদ গত কাল সকালে দুর্গা বাড়ী মন্দির, যুবলিঘাট মন্দির, আঠারবাড়ী মন্দির, শ্রী শ্রী জয় কালী মাতা মন্দির (বড়কালীবাড়ী) সহ বেশ কয়েকটি মন্দির পরিদর্শন করেন। মন্দির পরিদর্শন কালে পূর্জা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড: প্রণব কুমার সাহা রায়, সাধারণ সম্পাদক এড: রাখাল, উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর সাহা, হিন্দু, বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের কোষাধ্যক্ষ ও শ্রী শ্রী জয়কালীমাতা মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক যাবদ সেন সহ জাতীয় পার্টির বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

mayar-300x100

বিসর্জনের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘটলো এ বছরের দুর্গোৎসব আজ শনিবার বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনা নিয়ে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে সনাতম ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব দুর্গা পূজার আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটে । উল্লেখ্য গত ৩০শে সেপ্টেম্বর মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে হিন্দু ধর্মালম্বীদের ৫ দিনের দূর্গা পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। শান্তিপূর্ণ ও উৎসব মুখর পরিবেশে পূজা উদযাপন শেষ হওয়ায় জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী পূজা উদযাপন পরিষদ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এর আগে বিকেলে দূর্গাবাড়ী মন্দির প্রাঙ্গন থেকে বিজয়ার শোভাযাত্রা বের হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদীতে একে একে বিসর্জন শুরু হয়। বিজয়া শোভাযাত্রায় অংশ নেন জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী, পুলিশ সুপার মঈনুল ইসলাম, পৌর মেয়র ইকরামুল হক টিটু, র‌্যাবের এএসপি শামীম আরা বেগম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ ন ম ফাইজুল হক, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি প্রণব কুমার সাহা রায়, সাধারণ সম্পাদক এড. রাখাল চন্দ্র সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর সাহাসহ হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ। উল্লেখ্য প্রতিমা বিসর্জনের স্থান ঘোদারাঘাটে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও আকর্ষনীয় সাজসজ্জা ছিল চোখে পড়ার মত ।