ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

maro

মুক্তাগাছা শহরে এক সময় সুদের (মহাজনী ঋণ)ব্যবসায় ছিলো মাড়োয়ারীদের এক চেটিয়া আধিপত্য । এনজিওদের দোর্দন্ড প্রতাপে ক্রমান্বয়ে ধ্বস নামে মাড়োয়ারীদের ব্যবসা। সুদের ব্যবসার পাশাপাশি তাদের বড় ব্যবসা ছিলো পাটের । মুক্তাগাছার মাড়োয়ারী বাংলাদেশের শীর্ষ পাট ব্যবসায়ী পবন সুরেকাকে ১৯৯৯ সালে নারায়নগঞ্জে আততায়ীরা হত্যা করলে, পাট ব্যবসায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলে তারা । অব্যাহত লোকসানের কারণে আরেক প্রখ্যাত পাট ব্যবসায়ী মুরলী জালান আগওয়ালা তার বিশাল সম্পদ ব্যাংকে বন্ধক রেখে ইহলোক ত্যাগ করেন । দেনার দায়ে তার একমাত্র পুত্র বজরং জালান আগরওয়ালা তার ভিটে রেখে সমস্ত সম্পত্তি বিক্রি করতে বাধ্য হন । পরম্পরার ব্যবসা সুদ আর পাটের ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে এখন তারা কাপড় , ওষুধ এ সমস্ত ব্যবসায় নিয়োজিত হয়েছেন । পাশ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে তারা ব্রীটিশ আমলে মুক্তাগাছায় এসে বসতি স্থাপন করে বলে জানা যায় ।দীর্ঘদিন বসবাসের পরও তাদের সংখ্যা মুক্তাগাছায় নগন্য । বর্তমানে মুক্তাগাছায় মাত্র ৮ ঘর মাড়োয়ারী পরিবার রয়েছে। এই আট ঘরের মধ্যে ৯০ ও ২ হাজারের দশকে জামালপুর ও বগুড়া থেকে মুক্তাগাছায় এসে ২টি পরিবার জায়গা জমি কিনে বাসিন্দা হয়েছেন ।