ক্যাটেগরিঃ জনজীবন

ময়মনসিংহে শহরের ব্রহ্মপুত্র নদ তীরে জয়নুল আবেদিন পার্কের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বেআইনি দোকান ভাঙনের পর সূর্যের তেজ কমে এসেছে। স্থানটি এখন জন-মানবহীন ধু ধু প্রান্তর। এই সে দিন, চলতি সপ্তাহে ,ওরা এসে অবৈধ টং দোকানগুলো উঠিয়ে দিয়েছে।
mymensingheviction-1
ওরা মানে ময়মনসিংহ জেলা, পুলিশ, আর পৌরসভা প্রশাসন ময়মনসিংহ । ওরা মানে ময়মনসিংহ। ওরা মানে সরকার। ওরা মানে রাষ্ট্র। ওরা মানে প্রভু।

২ যুগেরও বেশি সময় একটানা এই পার্কের খোলা জায়গায় বসে চটপটি, ফুচকা ,চা ,ঝাল মুড়ি, তথা বেসাতি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতো মানুষগুলো। থাকতে থাকতে শিকড় গজিয়ে গিয়েছিল এদের।
mymensingheviction-2
গত ২৯ অক্টোবর হঠাৎই বন্ধ করা হলো এই অবৈধ নির্মাণ। টং বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখন ওদের জীবিকায় টান পড়েছে ।সরকারের অভিযোগ এদের কারনে নাকি পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে । স্কুল কলেজের ছেলে মেয়েরা ক্লাশ ফাঁকি দিয়ে নাকি এখানে বসে আড্ডা দেয় ।

গত ২৯ তারিখ থেকে এদের দোকান গুলিও নেই আর বাচ্চা বাচ্চা ছেলে মেয়েদের প্রেম বন্ধ হয়ে গিছে !
টং দোকান গুলি বন্ধ করে দেবার কারন কি শুধুই এটা নাকি অন্য কোন কারন আছে ?
mymensingheviction-3
পার্কের ভিতর যদি কোন দোকান নাই থাকবে তাহলে অভিজাত সারিন্দা , ব্রহ্মপুত্র ভ্যালী ,হিমু আড্ডার মত রেস্টুরেন্ট গুলি চলছে কিভাবে ? এই গুলিতে বসে ছেলে মেয়েরা প্রেম করছে না কি ? একই জায়গায় দুই ধরনের আচরন ক্যান তা মাথায় আসছে না ?
mymensingheviction-4
যাদের প্রেম করার বয়স তারা নিজেরাই তাদের বসে প্রেম করার জায়গা খুজে নিবে । টং দোকান উঠিয়ে প্রেম বন্ধ করা যাবে না ।

পার্কের ভিতর চটপটি , ফুচকা ,চায়ের দোকান না থাকলে মানুষ যাবে ক্যান সেখানে ? মানুষ সেখানে যায় একটু আড্ডা মারতে পাশাপাশি চা কিংবা অন্য কিছু খেতে ।
দোকান গুলি তুলে দেয়াতে এখন মানুষের বসার জায়গা নেই । দুদিন আগেও যেখানে মানুষে গমগম করতো আজ সেখানে যেন শ্মশানের নীরবতা ।
mymensingheviction5

আর এটা করাতে সবচেয়ে বেশি খতিগ্রস্থ হয়েছে সকালে যারা জগিং করতে যায় নদীর পাড়ে । এদের মাঝে প্রায়সবাই ডায়াবেটিস এর রোগী । সকালে অনেক্ষন হাটার পর সবার সুগার কমে যায় এটাই স্বাভাবিক ।

সবাই হেঁটে এসে এখানে ৫ টাকা দিয়ে এক কাপ চা আর ৫ টাকা দিয়ে একটা ডাল পুড়ি অথবা বিস্কুট খেয়ে নিত । এখন তাদের খেতে হবে ৫০ টাকা দিয়ে কিনে এক কাপ কফি আর ২০ টাকা দিয়ে একটা শিঙাড়া ।
mymensingheviction-5
সব কিছুই মিলিয়েই সবার কথা বিবেচনা করে এই খেটে খাওয়া মানুষ গুলির এখানেই নিয়মতান্ত্রিক ভাবেই পুনর্বাসন করা উচিৎ । আর যদি এদের কে আদৌ দোকান করতে দেয়া না হয় তাহলে যেন বড় বড় দোকান গুলিকেও সরিয়ে দেয়া হয় ।

কারন একই অপরাধে একজনের ফাঁসি হবে আর অন্যের বেকসুর খালাস হবে তা কি করে হয় ?
mymensingheviction-6
সংশ্লিষ্টরা এ বিষয়ে একটি সুন্দর সমাধান করবেন এই প্রত্যাশা ।