ক্যাটেগরিঃ প্রকৃতি-পরিবেশ

 

ময়মনসিংহে সারা বছর বিশেষ করে আষাঢ় থেকে শ্রাবণ আর আর ভাদ্রে জেলার সর্বত্র দেখা মিলেছে শিকারি পাখি মাছরাঙা। এদের দেখা মিলছে, বিল-ঝিল, মাঠ-ঘাট পুকুরের মাঝে প্রক্ষিপ্ত উজ্জ্বল আলোতে নিঃশব্দে বাঁশের কঞ্চি কিংবা ডালে ক্ষুরধার নখের সাহায্যে বসে থাকতে।

mymensingh,fish tail bird

.

অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় মাছ ব্যাঙ, পোকা – মাকড় শিকার ধরার দৃশ্য সকল শ্রেণি পেশার মানুষের দৃষ্টি কেড়ে নিচ্ছে। আবার শিকারের পর সেই খাবার গাছের ডালে বসে খাওয়ার অসাধারণ দৃশ্যপটও গ্রাম বাংলার চির চেনা এক রূপের অংশ বলে জানাচ্ছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
mymensingh,fish tail bird-২

.

খাটো পুচ্ছ, বড় মাথা, সুচালো ঠোটের আটোসাটো গড়নের পাখি এই মাছরাঙা। শিকার ধরার জন্য পানির দিকে মাথা নিচু করে ছোঁ দিয়ে ডুব দেয় পানির ভেতর। শিকার ধরে ঠোটের সাহায্যে আছড়ে আছড়ে হত্যার পর উপর দিকে ছুঁড়ে মারে। শিকারের মৃত্যু নিশ্চিত করে গিলে খেয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তোলে।
mymensingh,fish tail bird-2
ছোট ছোট পায়ে কুটকুট করে হাঁটে মাছরাঙা। কিচিরমিচির করে ডাকে। এদের ছানারা কুঁই কুঁই শব্দে ডাকাডাকি করে। মা মাছরাঙা তাদের ছানাগুলোকে আদর করে খাওয়ানোর দৃশ্য যারা দেখেছেন তারা বলছেন, মায়ের আদর- স্নেহ, ভালবাসা- সোহাগ, মায়া- মমতা কি করে উৎসারিত হয়।
mymensingh,fish tail bird-3
তবে অবৈধ শিকার আর নগরায়নের প্রতিযোগিতায় কমছে মাছরাঙা।