ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে রুদ্ধশ্বাস রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেছেন দেশের মানুষ। সৃষ্ট সংকট নিরসনে সরকারি ও বিরোধী দলের মধ্যে আলোচনার কোন বিকল্প নেই। গুম, খুন, হরতালের মতো অবাঞ্ছিত ঘটনা সভ্য সমাজের জন্য কাম্য নয়। আমরা সাধারন জনগন বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সরকারি ও বিরোধী দলকে একত্রে বসে সমঝোতার আহ্বান জানাচ্ছি।

হরতাল-সংঘাতের কারণে সাধারণ মানুষের খুবই কষ্ট হচ্ছে। পরীক্ষার সময়ে হরতালে পরীক্ষার্থীরা চরম অনিশ্চতায় থাকে। হত্যা, গুমের রাজনীতি সাধারণ মানুষের কাম্য নয়। এ ধরনের ঘটনা একের পর এক ঘটছে, অথচ এর কোনো প্রতিকার হচ্ছে না। সাধারণ মানুষকে নিরাপদে পথ চলার, বাড়িতে ঘুমানোর নিশ্চয়তা দেওয়া রাষ্ট্রের কর্তব্য। মানুষ পথ চলতে ভয় পাচ্ছে, নিজের বাড়িতে ঘুমাতে ভয় পাচ্ছে। গুম-হত্যার মতো ভয়ঙ্কর ঘটনাগুলো বন্ধ হোক এবং এটা বন্ধে সরকারকেই ব্যবস্থা নিতে হবে।

কেবল সাবেক সাংসদ এম ইলিয়াস আলী নন, সাধারণ মানুষও গুম হয়ে যাচ্ছেন। সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়, সরকারের বিরুদ্ধেই নাগরিকদের গুম করার অভিযোগ উঠছে। কিছু কিছু গুমের ঘটনায় নাকি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। সরকারই যদি গুম করে, তাহলে মানুষ বিচার পাবে কোথায়? ক্রসফায়ারে মারা হবে, মানুষ গুম হয়ে যাবে, এগুলোর বিচার পাওয়া যাবে না_ এমনভাবে কোনো রাষ্ট্র চলতে পারে না। আবার হরতাল দিয়ে জানমালের ক্ষতি করা হবে, তাও সমর্থনযোগ্য নয়।

সরকারি ও বিরোধী দলের মধ্যে পরস্পর দোষারোপ না করে ভবিষ্যৎমুখী পরিকল্পনা জাতি জানতে চায়। বিএনপির একজন নেতা নিখোঁজ হওয়ায় বিরোধী দলের প্রতিবাদ করার নিশ্চয়ই অধিকার আছে। তবে এভাবে হরতাল দিয়ে সমাধান হবে না। জ্বালাও-পোড়াওয়ে জনগণের জানমালের ক্ষতি না করে কীভাবে প্রতিবাদ করা যায়, সে ব্যাপারে নিশ্চয়তা দিয়ে বিরোধী দলের পরবর্তী কর্মসূচি দেওয়া উচিত।

অপহরণ, গুম, গুপ্তহত্যা প্রভৃতি আইনের শাসন পরিপন্থী, মানবতাবিরোধী অপরাধ। কোনো সভ্য সমাজে এসব সংঘটিত হয় না। দীর্ঘ সংগ্রামের মাধ্যমে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা হয়েছে। এখন এ জাতীয় ঘটনায় শুধু বিশেষ ব্যক্তি বা তার পরিবার ক্ষতগ্রস্ত হচ্ছে না, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। ভেঙে পড়ছে আইনের শাসন। অপহরণ, গুম, খুন প্রভৃতি শুধু প্রতিবাদের বিষয় নয়, এসবের প্রতিকার দরকার। হরতাল দিয়ে জনজীবনকে অচল করে, অর্থনীতিকে ক্ষতি করে এসবের প্রতিকার হবে না। গুম, হত্যা ও হরতাল থেকে জনগন পরিত্রাণ চায়।