ক্যাটেগরিঃ সেলুলয়েড

 

৬০টি প্রেক্ষাগৃহে থেকে নামিয়ে নিয়েছে, ঢাকার মাত্র এক প্রেক্ষাগৃহে চলছে! ২৪ ডিসেম্বর রাত ৮টার পর সেই শোও বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা ! সিনেমার শুরুতেই গুটি পাকানো হয়েছিল যে এই সিনেমা মুক্তি দেওয়া যাবে না !

টাঙ্গাইলের শহীদ মিনারের সামনে প্রতিবাদ – এই সিনেমা বন্ধ করা যাবে না! বন্ধ হয়ত হবে এই সিনেমা! কিন্তু মানুষের হৃদয় থেকে বুঝবে কি করে। ২ ঘণ্টার এক সিনেমার জন্য যে কত রাজনীতি ঘটে গেল এখানে সেখানে, সে কথা কি করে ভুলবে মানুষ!

বাপজানের বায়স্কোপঃ কী আছে এই সিনেমায় যে অনেকের না চাওয়াতে সিনেমা হল থেকে উঠিয়ে নেয়া হচ্ছে? কিংবা মাত্র একটা হলে চলছে ঢাকায়? কিংবা পোস্টারে ছেয়ে যায়নি রাজপথ !

মনে আছে প্রবীর সিকদারের কথা? প্রিন্স বিন মুসার যুদ্ধের সময় রাজাকারপন্থী যুদ্ধবিরোধী কথা লিখেছিল বলে ’৫৭ ধারার নাম করে জেলে পুরা হয়েছিল। আমি যদি বলি বাপজানের বায়স্কোপ সেই গল্পেরই এক অতি সাধারণ রূপ! খোলা চোখে যার গভীর দৃষ্টি বোঝা খুব শক্ত না!

মরে গেছে হাসানের বাবা, বেঁচে থাকতে দেখাত বায়স্কোপ। ছেলেকে স্বপ্নে এসে বলে সেই বায়স্কোপ পেশায় ফিরে যেতে। ছেলেও যায় । কিন্তু আগের যুগের চল নাই বায়স্কোপের । নতুন ভাব আনে। বায়স্কোপে ঢোকায় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। নিজের চাচা গেরিলা মুক্তিযুদ্ধ ইউসুফকে রাজাকার সিকান্দার কীভাবে মেরে ফেলে গ্রামে গ্রামে ঘুরে বায়স্কোপ দেখিয়ে সে গল্প করে, সঙ্গী ইনসান, মাদ্রাসায় পড়ে কিন্তু ভীষণ ভাল আঁকিয়ে। শরিয়তবিরোধী ধার না ধেরে ছবি আঁকে।

গ্রামে গ্রামে যুদ্ধের প্রচারণা ভয় পাইয়ে দেয় চরের জীবন সরকারকে। তারই মামা রাজাকার সেকান্দার কি না! বায়স্কোপ যেহেতু হাসান বন্ধ করবে না, সেহেতু গ্রামে লবণ বেচাকেনা বন্ধ করে দেয়। তরকারির লবনের অপরাধে গ্রামের লোক কষ্টে মরে, হাসান কিন্তু ছাড়েনা বায়স্কোপ দেখানো। একসময় নিজের নতুন স্ত্রী চুপি চুপি গ্রামের লোকদের লবণ দেয় বলে তাঁকে বের করে দেয়। নিজের লোক সোহরাবকে দিয়ে ইনসানকে খুন করায়। হাসানের কল্লাও ফেলাতে চায়, কিন্তু ততদিনে বায়স্কোপে থাকা মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে জমা হয়েছে লাখ লাখ লোক।

cine

এই সিনেমাতে রাজাকারের বংশধর জীবন সরকারের মুখ থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের .”বান্দির পুত” গালির ডায়লগ ছিল। আজকের দিনে আমাদের রাজনীতির অবস্থা বোঝার সবচেয়ে ছোট্ট ইঙ্গিত ছিল গালিটি। ধর্মরাজনীতিকে খুব সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলেছে। আর কিছু না পেরে ইনসানের আঁকাআঁকিকে বেদাত ঘোষণা করে। এমনকি ইনসানের মূর্খ মা কে বোঝায় মাদ্রাসার বানোয়াট নিয়মের কথা। মা কিছুই বুঝে না! এইখানেই দেখা যায়, ধর্মরাজনীতি কীভাবে ব্রেইনওয়াশ করে পড়াশুনা না জানা মানুষের !

দেশে ধর্মরাজনীতি করা মানুষগুলোর গালে সজোরে চড় কষে দিয়েছে বাপজানের বায়স্কোপ। দৃষ্টিকটুর মধ্যে লেগেছে সরকার বাড়ির বউয়ের অতিরিক্ত অভিনয়। দিলারা চরিত্র ও হাসানের বউর চরিত্রে অভিনেত্রীরা অসাধারণ। শতাব্দী ওয়াদুদ জীবনের সেরা কাজ করেছে, একই কথা শহিদুজ্জামান সেলিমের জীবন সরকারে অভিনয় করা। তাঁকে ছাড়া হতই না এই চরিত্র। এদের দুই জনের অভিনয় ছিল “ কে কত বেশী ভাল অভিনয় করতে পারে”।

সিনেমার শেষের দিকে জীবন সরকারকে মারার জন্য উদ্যত হয়ে দৌড়াচ্ছে সোহরাব, আর ওদিকে হাসান চালাচ্ছে তার বাপজানের বায়স্কোপ।

cine 2

বর্তমান রাজনীতি ফুটিয়ে তুলেছে এই সিনেমা। যা আগে সাহস দেখিয়ে অন্য কোন সিনেমা পারেনি। তাই এই সিনেমা নিয়েও কম রাজনীতি হল না! কাহিনী হচ্ছে, আমরা চাই সিস্টেম সবাই মেনে নিক, কোন প্রশ্ন না করুক! প্রশ্ন হবে বলেই অন্য অনেক কিছুর হাত পা বেঁধে দেওয়ার মত এই সিনেমাটাকেও শেষ করে দিল !

কিন্তু বারুদ কি সত্যিই নিভে যায়?

ইউটিউব ট্রেইলারঃ