ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 

ক্রিকেট একটি খেলা । কিন্তু বর্তমানে ক্রিকেট যেন আর খেলার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই । এটা এখন আমাদের জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে পরিনত হয়েছে । শুধুই যে আমাদের তাও না আমার মনে হয় টেস্ট খেলুড়ে ১০ টি দেশেরই একি অবস্থা । টেস্ট খেলুড়ে দেশের মধ্যে বাংলাদেশই নবীনতম । তাই আমাদের খেলার মান অন্যদের তুলনায় একটু দুর্বল ছিল এটা আমাদের স্বীকার করতে কোন দ্বিধা নাই । তাই নিজ দেশের বাইরে অন্য কোন দেশকে সমর্থন করাটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার ।

আমার বিশ্বাস বাংলাদেশের প্রত্যেকটি খেলোয়াড়েরও জাতীয় দলে খেলার পুর্বে অন্য কোন দেশের প্রতি টান ছিল । হতে পারে সেটা ভারত,পাকিস্তান কিংবা অন্য কোন । যাক ওসব এখন অনেক দুর । এখন বাংলাদেশ ভালো খেলতে শুরু করছে তাই অন্য দেশের প্রতি অতটা আকর্ষণ লাগে না । কিন্তু এটাও ঠিক যে যখন কোন বৈশ্বিক টুর্নামেন্ট থেকে বাংলাদেশ বিদায় নেয় তখন যে যার মত দ্বিতীয় সাপোর্ট খুজে নেয় । সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশ ভারত দ্বৈরথ এমন এক পর্যায়ে নিয়ে গেছে যে সেটা এখন ভারত পাকিস্তান দ্বৈরথের চেয়েও অনেক এগিয়ে । এবারের বিশ্বকাপ থেকে যখন বাংলাদেশ বিদায় নিল সেই ভারতের কাছেই মাত্র ১ রানের জন্য তাই স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশের মানুষ ভারতের বিপক্ষ অবলম্বন করলো । যে করেই হোক ভারত যেন কাপ না পায় এটাই একমাত্র চাওয়া । বাংলাদেশের তারকারাও তো দিন শেষে একজন মানুষ । বাংলাদেশের নাগরিক । তাই তাদের ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হয় নাই। তার প্রমাণ আমাদের মুশফিক । ২য় সেমিফাইনালে ভারতের জয়ে তিনি আনন্দিত হবেন এটাই স্বাভাবিক । আর ফেজবুক, টুইটার একান্তই ব্যক্তিগত । সেখানে যে কেউ নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করতেই পারে । তাই বলে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করার পর ক্ষমা চাইতে হবে কেন ? আর মুছেই বা ফেলতে হবে কেন? কই আশ্বিন কিংবা জাদেজা তো তাদের অভিব্যক্তি প্রকাশের পর মুছেও ফেলেনি ক্ষমাও চায়নি ? কিন্তু মুশফিকের বেলায় তা কেন হল তা আমার বোধগম্য নয় ।যাই হোক মুশফিক মুছে ফেললেও আমরা মুছি নাই । বরং আমরা সেটাকে সংরক্ষণ করেছি ।

Mushfiqur Rahim