ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

ICT বাংলাদেশের একটি অনেক বড় সম্ভাবনাময় খাত এটা কারো অজানা নয় । বরং এটা এখন আমাদের দেশের অনেক পরিচিত একটি খাত । আগে যখন আমরা এসএসসি , এইচএসসি তে পড়তাম তখন কম্পিউটার নামক একটা বিষয় থাকলেও সেটাকে ঐচ্ছিক পর্যায়ে রাখা ছিল । যে কেউ চাইলেই বাদ দিয়ে কৃষি বা অন্যকোন সাবজেক্ট বেছে নিতে পারতো । কিন্তু বর্তমান সময়ে আইসিটি নামক একটা সাবজেক্টকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে । এতেই বুঝা যায় আমাদের বর্তমান সরকার এবিষয়ে কত সিরিয়াস ! দেশের প্রতিটি শিক্ষার্থী যাতে তথ্য ও প্রযুক্তিতে এগিয়ে যায় সেটাই আমাদের চাওয়া । আইসিটি এর একটি বড় অংশজুড়ে রয়েছে ফ্রিল্যান্সিং । ফ্রিল্যান্সিং এর উপর অনেকেই প্রতিষ্ঠিত । অনেকেই এই ফ্রিল্যান্সিংকেই পেশা হিসাবে গ্রহন করে নিয়েছে । আমি চাইব দেশের আরো অনেক মানুষ ফ্রিল্যান্সিংকে পেশা হিসাবে গ্রহন করুক । এটা একদিকে যেমন দারিদ্রমুক্ত করবে অন্যদিকে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে অনেকদুর এগিয়ে নিয়ে যাবে । কিন্তু যারা ফ্রিল্যান্সিংকে পেশা হিসাবে গ্রহন করতে চায় তাদেরকে প্রথমেই যে বিষয়ে সমস্যায় পড়তে হয় তা হচ্ছে পেপাল । পেপাল বাংলাদেশে না থাকার কারনে অনেকেই হয়তো পরিচিত আত্নীয়স্বজন বন্ধুবান্ধবের মাধ্যমে বিদেশ থেকে পেপাল একাউন্ট তৈরি করে নেন । কিন্তু যাদের কোন বন্ধুবান্ধব কিংবা আত্নীয়স্বজন বাইরে থাকেন না তারা হতাশ হয়ে পড়েন এবং কোন এক সময় ফ্রিল্যান্সিং জগত থেকে দুরে সরে আসেন । আর এভাবেই ধ্বংস হচ্ছে বহু উজ্জ্বল সম্ভাবনা । কিছুদিন আগে পত্রিকায় দেখলাম আগস্টেই পেপাল আসছে বাংলাদেশে । আগস্ট গেল সেপ্টেম্বর গেল অক্টোবরও যাচ্ছে পেপালের কোন নাম নাই । এভাবে যে আর কত আগস্ট যাবে তারও কোন নিশ্চয়তা নাই । তাই আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পুত্র তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক  উপদেষ্টা মাননীয় সজীব ওয়াজেদ জয়কে অনুরোধ করতেছি অতি শীঘ্রই পেপাল বাংলাদেশে চালু করে  আইসিটি খাতকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি সকল ফ্রিল্যান্সারদের উপকার করবেন ।