ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

ব্লগার রাজিব ভাই আর নেই। হায়েনারা তাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে আর আমরা কাপুরুষগন তাকে অসহায়ের মতো কবর দিয়ে এসেছি। রাজিব ভাই এমনই সময়ে মৃত্যুবরণ করলেন যখন দেশ উত্তাল রাজাকারের ফাঁসির দাবিতে। শত কণ্ঠের দাবিকে উপহাস করে রাজীব ভাইকে হত্যা করে বুঝিয়ে দিল জেলবন্দি রাজাকারদের মেরে লাভ নেই লক্ষ্ রাজাকার আজ বাতাসে রক্তের গন্ধ ছড়িয়ে দিতে সক্ষম রাতের আঁধারে।

বঙ্গবন্ধু ও জিয়াউর রহামানের হত্যাকাণ্ডের পর জনৈক ব্রিটিশ সাংবাদিককে প্রশ্ন করা হয়েছিল সদ্য স্বাধীনতা প্রাপ্ত একটি দেশে পর পর এরকম হত্যাকাণ্ড ঘটল কেন? তিনি জবাবে বলেছিলেন – আপনার যদি একজন শত্রু থাকে তবে সে বড়জোর আপনাকে হত্যা করবে। আপনার যদি একজন বন্ধু থাকে সে বড় জোর আপনার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করবে। কিন্তু আপনার মধ্যে যদি নির্লিপ্ততা থাকে তবে আপনার শত্রু বার বার হত্যা করবে আর বন্ধু বার বার বিশ্বাসঘাতকতা করার সুযোগ পাবে। বাংলাদেশের জনগন নির্লিপ্ত তাই পর পর এই জঘন্য হত্যাকাণ্ড ঘটল।

আসলেই আমরা নির্লিপ্ত। আজ উচিত ছিল রাজিব ভাইয়ের লাশ দাফন না করে হায়নাদের মুখোশ উন্মোচন করা পর্যন্ত শাহবাগে রেখে দেয়া । রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যাথার করে যারা এরূপ করতে সক্ষম তাদের ফাঁসি আগে হওয়া উচিত। কাদের মোল্রাদের রাজাকারী একমাত্রিক কিন্ত এ রাজাকারদের ছোবল বহুমাত্রিক। এখনই সময় সরকারের এদের গ্রেফতার করে এদের মদদদাতা সহ জনগনের সামনে স্বরপ তুলে ধরা তা না হলে শাহবাগের আন্দলোন অপমানিত হবে। অপমানিত হবে রাজীব ভাইয়ের বিদেহী আত্মা।