ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

শাহবাগ আন্দোলন বাংলাদেশের ইতিহাসের এক মাইল ফলক। জনগনের ইচ্ছা প্রকাশ করার এক উন্মুক্ত মঞ্চ। স্বাধীনতা যারা দেখে নাই তারা আর এক যুদ্ধ করে মুক্তিযুদ্ধের স্বাদ নিতে জড় হয়েছে , হচ্ছে এই প্রজন্ম চত্তরে। যারা পারে নি যেতে শাহবাগে তারা শাহবাগ আন্দোলন এর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে নিজ নিজ এলাকায় তৈরি করেছে গনজাগরন মঞ্চ। একই সময়ে একই সাথে স্লোগানে স্লোগানে সারা দেশকে বানিয়েছে বিস্তৃত শাহবাগ। এ এক নতুন ডাক, নতুন পথ, নতুন হুংকার, নতুন হাতছানি যা বাঙ্গালীকে সাহস যোগাবে যুগে যুগে। সাইদীর ফাঁসির রায়ের মধ্য দিয়ে দেশ আজ আর একটু হালকা হলো বিচার প্রার্থী ৭১ এ স্বজন হারানো বুকে চেপে থাকা কষ্ট তথা বাঙ্গালীর বুকে চেপে থাকা ক্ষোভ আর বিচার করতে না পারার কষ্ট। যে কাজটি করতে গিয়ে বর্তমান সরকারকে নিতে হয়েছে অনেক ঝুকি। এটা শুধু সরকার পক্ষের নির্বাচনী অঙ্গিকারই নয় বরাং বাঙ্গালী হিসেবে বাংলাদেশী হিসেবে তাদের পবিত্র কর্তব্য। শেষ পর্যন্ত সফলতার সাথে বিচার কার্য সম্পন্ন করে দেশ বাসীকে মুক্তি দিবে যুদ্ধাপরাধীর বিচার না করার কষ্ট থেকে এটাই জাতির কামনা।

শাহবাগ আন্দোলন ৭১ এর মুক্তিবাহিনীর প্রতীক। তাদের হাতে আছে পৃথিবীর সেরা অস্ত্র কলম, জ্বালানী হিসেবে আছে বুদ্ধি আর বাহন হিসেবে আছে প্রযুক্তি। এই নব আন্দলোনকারীরা ৭১ এর মুক্তিবাহীনীর মত অসহায় নয়। আজ সময় এসেছে বর্তমান আন্দোলনের সাথে সাথে দেশের ভবিষ্যৎ নষ্টকারী টেন্ডারবাজ, দুর্নীতিবাজ, ধর্মব্যবসায়ী, রাজাকারের সমর্থনকারী, কসাই ডাক্তার, চরিত্রহীন শিক্ষক, নীতিহীন আইনজীবি, অসাধু ও মজুদকারী ব্যবসায়ী, বিদেশী দালাল ও ধান্দাবাজ রাজনীতিবীদ এবং অনুসারীদের বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে জাগরন সৃষ্টি করা। এখনই আহবান জানাতে হবে সকল অনিয়ম ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে সকলের শক্ত অবস্থান নেয়ার। এ আন্দলোন যদি শুধু মাত্র একমাত্রিক হয় তবে আফসোস রয়ে যাবে ইস যদি এমন হতো…………
আসুন আমরা দেশের জন্য শফত গ্রহন করি………..

যারা নিজের স্বার্থে বা বিদেশের স্বার্থে দেশের স্বার্থকে ধংস করেছ এবং ধ্ংসে নিয়োজিত আছে তারা দুর্নীতিবাজ এবং তাদের চিহ্নিত করি এবং বর্জন করি।
দেশীয় পন্য ব্যবহার করি।

দেশী সংস্কৃতি লালন করি বিদেশী ও অপসংস্কৃতি বন্ধ করি। পুজিবাদের করাল গ্রাস থেকে দেশকে রক্ষা করি।