ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

বাংলাদেশের ধর্ষকগোষ্ঠী এখন দারুণ পারফর্ম করছে। তাদের কীর্তি আজ দেশব্যাপী আলোচিত সমালোচিত হচ্ছে। পত্রিকায়, টিভি চ্যানেলে, বেতারের খবরে ধর্ষকদের নাম এখন ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে। সকলে এখন তাদের একনামে চিনছে। কেউ কেউ হয়তোবা বাহবা দিচ্ছে ধর্ষকগোষ্ঠীকে। ‘তুমি সত্যিকারের বীর। তোমার গোপনাঙ্গ আছে বলেই তো তুমি ধর্ষণ করে তোমার বলিষ্ঠতার প্রকাশ ঘটিয়েছ।’ বন্ধুরা কেউ কেউ বাহবা দিয়ে বলছে ‘একেই না বলে বনের বাঘ।’ ধর্ষকগোষ্ঠী এতে আরও উদ্বুদ্ধ হয়ে ভবিষ্যত ধর্ষনের প্রতিযোগীতায় কিভাবে নিজেকে সবার আগের সিরিয়ালে রাখা যায় সেই অঙ্কই কষছেন।

এতদিন যানতাম বাড়ীতে একা পেয়ে কাউকে ধর্ষণ করা হয়েছে কিংবা প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে কেউ ধর্ষিত হয়েছে কিংবা বন্ধুর প্রেমের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে ধর্ষিত হয়েছে। কিন্তু এখন দেখছি দিন দুপুরে ধর্ষণ হচ্ছে, গাড়ীতে সিএনজিতে ধর্ষণ হচ্ছে, রাস্তায় ধর্ষণ হচ্ছে। দিল্লীতে গাড়ীর ভেতরে তরুনী ধর্ষণের পর অনুকরণপ্রিয় বাঙ্গালী ধর্ষকরা বাংলাদেশেও এ ঘটনা ঘটিয়েছে। বাংলাদেশের ধর্ষকরা লড়াইয়ে ভারতকে পেছনে ফেলতে শেষ পর্যন্ত সিএনজির ভেতর ধর্ষণ করে তাদের বীর্যের সক্ষমতা প্রমাণ করেছে।

না জানি আমাদের এ সাধুগোষ্ঠী ভবিষ্যতে আর কোন পন্থায় ধর্ষণের কৌশল আবিষ্কার করেন। বিশ্বব্যাপী নতুন নতুন আইটেম আসছে। নতুন নতুন পদ্ধতি আবিস্কৃত হচ্ছে। আমার বিশ্বাস আমাদের ধর্ষকবিশেষজ্ঞরাও বসে নেই। তারাও নতুন আঙ্গিকে ধর্ষণের রূপায়নের পথ আবিস্কারে চেষ্টা চালাচ্ছেন। হয়তোবা কিছুদিনের মধ্যে আবিষ্কৃতও হয়ে যাবে। আমরাও আবার দেখব ধর্ষনের অভিনব পন্থা। মনে মনে ভাবতেও পারি সত্যিই ফ্যান্টাস্টিক। একটা ভিডিও ক্লিপ পেলে মজা করে দেখতে পেতাম।

আমাদের সমাজে এভাবে পরিবর্তন আসছে। জানিনা এ পরিবর্তনে কি সুফল আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে। আমাদের তো শুধু দুঃখ প্রকাশ করা ছাড়া আর করার কিছু নেই। তবুও সমাজের এ দুর্দশায় শুধু দুঃখ প্রকাশ করেই যেন একটু শান্তি পাই। আর মাঝে মাঝে সৃষ্টিকর্তার কাছে আবদার জানাই হে প্রভু সমাজের এ অরাজকতা, বেহায়াপনা, নির্লজ্জ্বতা থেকে আমাদের রক্ষা কর। এমন একটি সমাজ দাও যেখানে থাকবেনা ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, রাজনৈতিক বিদ্বেষ, গুম-হত্যা, পাপ।