ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

তার নামে রয়েছে গোটা ৩০ খুন ও ১৭টি অপহরণের মামলা। সঙ্গে ডাকাতি, অস্ত্র ও মাদক চোরাচালানেরও বেশ কয়েকটি। রয়েছে ইন্টারপোলের রেড কর্নার নোটিস। সেই সুব্রত বায়েন কলকাতায় ধরা পডছে।

সুব্রত বায়েন মঙ্গলবার কলকাতার চাঁদনি চক এলাকার একটি হোটেল থেকে গ্রেফতারের পরে বুধবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হয় সুব্রত বায়েনকে। বিচারক তাকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন।

কলকাতার একটি নম্বর থেকে ঘন ঘন কানাডায় ফোন করা দেখে সন্দেহ হয়েছিল লালবাজারের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্সের (এসটিএফ) অফিসারদের। আর সেই ফোন ট্র্যাক করতে গিয়েই হদিস মেলে দুষ্কৃত সুব্রত ওরফে মহম্মদ ফতে আলির। এর আগে ২০০৮ সালের অক্টোবরে দক্ষিণ কলকাতার পাম অ্যাভিনিউ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হলেও জামিনে মুক্তি পায় সে। তার পরে নেপালে পালিয়ে যায়। এসটিএফ জানিয়েছে, গত ৮ নভেম্বর নেপালের ঝুমকা জেল থেকে সুড়ঙ্গ কেটে পালিয়েছিল সুব্রত। তার পর গাড়িতে চড়ে বিহারের পূর্ণিয়া পৌঁছয়। সেখান থেকে বীরভূমের সিউড়ি হয়ে ঘাঁটি গাড়ে কলকাতায়।