ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

২০০২ সালে সংসদে দাঁড়িয়ে জামায়াতের এক নেতা বলেছিলেন , “কোথাই আজ মুক্তিযোদ্ধা আর আওয়ামীলীগ ? আজ দেখুক আমরা ক্ষমতায় !”.. বিএনপি সেদিন এদের সুযোগ দিয়েছিল ! .. বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকের নাম পরিবর্তন করতে মতিউর রহমান নিজামীকে সংসদে ফ্লোর দেয়া হয়েছিল , নিজামী সংসদে দাঁড়ি ভয়ে এদিক সেদিক তাকাচ্ছিলেন , কিন্তু বিএনপি সদস্যরা দাঁত বেড় করে হেঁসে হেঁসে তাকে উৎসাহ দিয়ে সেই বিল উত্থাপন করিয়ে নিয়েছিল ! তারাই রাজাকরের পুন:বাসন কারি । জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে পাকিস্তান থেকে রাজাকারদের আমদানি করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাস্ট্রমন্ত্রী ও সাংসদ বানায় । বিএনপি ৯১ সালে রাজাকারকে রাস্ট্রপতি বানায় , ২০০১ সালে ত রাজাকারের দেশ বানায় । সেই বিএনপি আজ নিকেদের উদারপন্থী বানানোর চেষ্টায় ব্যস্ত , তবুও সাপ ত একেঁ বেঁকেই চলে , তাই সেই অভ্যাস ত্যাগ করতে পারেনি । আজ স্বাধীনতার মাসে জামাতকে দিয়ে বিএনপি হরতাল করিয়ে নিচ্ছে । হরতাল ডাক দেবার সময় জামাতের পাশে কোলবালিসের ভূমিকায় ছিল মীর্জা ফখরুল ইসলাম (রাজাকার চোখা মিয়ার পুত্র) ! বিএনপির সাথে রাজাকারের সম্পর্ক চিরকালই এমন ।