ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

২০১২ সালেই রাশিয়ার নির্বাচন। একটা ব্যাপার তো আছেই যে কে হবে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট । সঙ্গে সঙ্গে এই বিষয়টিও এখন বেশ পরিস্কার হয়ে আসছে যে এই মুহূর্তে রাশিয়ার লক্ষ্য কি হতে পারে। আলোচনা ও ভাবনায় যে বিষয়টি পুতিনের মুখ থেকেই উঠে আসছে তা হল সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন রাষ্ট্রপুঞ্জ নিয়ে ইউরেশিয়া গঠন।

কমনওয়েলথ অব ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেট বা সিআইএস এ আটটি দেশ মুক্ত বাণিজ্যের ব্যাপারে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। ২০১২ সালের জানুয়ারিতে বেলারুস, কাজাখাস্তান ও রাশিয়া অর্থনৈতিক জোট গঠনে আলোচনায় বসবে।

পুতিনের ভাষায় ২০১৫ সালের মধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়নের মত তারা একটা অর্থনৈতিক জোট গঠনের দিকে যাবে।

এটি এখনও পরিকল্পনা থেকে গেলেও আলাপ আলোচনা চলছে ২০ বছর আগে ভেঙ্গে যাওয়া সোভিয়েত ইউনিয়নের দেশগুলোর মধ্যে। অনেকেই ভাবছেন ২০ বছর পর এটা একটা বড় ধরনের পরিবর্তন।

তবে ইউক্রেন, বেলারুস, মলদোভার মত দেশগুলোর সদিচ্ছা এখন অনেকটাই প্রকাশ্য।

রাশিয়ার বাজার এই সমস্ত দেশগুলোতে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। তবে সোভিয়েত ইউনিয়নের এই অতীত নামটি আরেকটি ভিন্ন কোনও নামে প্রকাশ পাক। এ নিয়ে দর কষাকষিও চলছে। তবে পুতিন আশাবাদী । এই আমাভাদের মধ্যে তার সতর্ক অবস্থানও বেশ স্পষ্ট।

তবে এটা খুব মজার বিষয়ই যে, বিংশ শতাব্দীর এই সোভিয়েত সাম্রাজ্য যা ১৯৯১ সালে ভেঙ্গে পড়ে তা আবার ২০ বছর পর ফিরে আসছে, তবে আগের মত করে নয়; কেউ এখানে হুমকি দিচ্ছে না; এখন সবাই স্বাধীন দেশে মুক্ত বাণিজ্য জোট গঠনে এগিয়ে আসছে।