ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

৬টি নতুন বেসরকারী ব্যাংক এর মালিক হলেন প্রভাব শালী রাজনৈতিক ব্যাক্তি বর্গ। আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী কোন এক সময় বলেছিলেন – আমরা রাজনীতি করি ব্যাবসা করি না,ব্যাবসায়ীরা ব্যাবসা করবেন আমরা ব্যবসার সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করে দেব। তা হলে এ ভাবে রাজনৈতিক ব্যাক্তিদের মালিকানা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে কি প্রমান করে! রাজনীতিকরা প্রভাব খাটানোর মাধ্যমে ব্যবসায় আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করছে। একটি ব্যাংক প্রতিষ্ঠার জন্য যে পরিমান টাকার প্রয়োজন হয় এই টাকার মালিক হলেন কি ভাবে? নির্বাচনের সময় তাদের সম্পদ বিবরণীর সাথে সংগতি রেখে ৩ বছরের ব্যাবধানে একটি ব্যাংক করার মতো টাকা কি ভাবে মালিক হলেন তা কি খতিয়ে দেখার কেউ নেই? নাকি তার জন্য আরেকটি সরকার পযর্ন্ত অপেক্ষা করতে হবে? কারন আমাদের দেশের কালচার তো এটাই দাঁড়িয়েছে। এক দল ক্ষমতায় থাকবে এবং যা খুশি তা করবে এবং অন্য দলের অপকর্মের বিচার করবে, আবার পরবর্তীতে আরেক দল ক্ষমতায় আসবে তারাও একই কাজ করবে। সব সময় ক্ষমতাসীনদেরই জয় জয়কার।কখনো এরা-কখনো ওরা। রাজনীতির সাথে জড়িত উপর থেকে শুরু করে নীচ পর্যন্ত সর্বস্তরে একই দৃশ্য লক্ষনীয়। হায়রে রাজনীতি!