ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

কিছুক্ষন আগে bdnews24.com এ দেখলাম লিমনের মামলার বিষয় নিয়ে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন উনার কিছুই করার নেয়। এটি নতুন কিছু নয়। এর আগেও অনেক মন্ত্রী নানান রকম আলোচিত সমালোচিত কথার জন্ম দিয়েছেন। তাই এখন এই গুলো শুনতে শুনতে আমাদের সহ্য হয়ে গেছে। তাই হয়ত আমাদের সুশিল সমাজও এখন এসব নিয়ে আর বেশী মাথা ঘামায় না। আমার মনে আছে একবার এক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিল আল্লাহর মাল আল্লাহ নিয়ে গেছে। আর এতেই সারা বাংলাদেশে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল। সে সময় আমাদের ( বর্তমানে ঘুমিয়ে থাকা ) সুশিল সমাজ জেগে উঠেছিল। কিন্তু তাদের হাক ডাক এখন খুব একটা শুনা যায় না। মনে হয় তারা কয়েক বছরের জন্যে ডাক্তারের পরামর্শে বিশ্রামে আছেন। যারা জেগে আছেন তারা আবার ভয়ের মধ্যে থাকেন কি বলে আবার মানহানির মামলা খেয়ে আদালতের সামনে তিন ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। আমি প্রতিদিন সকালে অফিসের অতি প্রয়োজনীয় কা গুলো শেষ করে চা পান করার ফাঁকে চোখ বুলিয়ে নিই bdnews24.com পত্রিকার বাংলাদেশ অংশে। আর এতেই প্রতিদিন চোখে পড়ে আধা বেলার ( আধাবেলা বলার কারণ এখানে যখন সকাল ১০ টা তখন বাংলাদেশে দুপুর ১ টা) নানা খুনের ঘটনা, পঁচা গলিত লাশ পাওয়ার খবর অথবা কোন বাড়িতে ডাকাতি হওয়ার খবর। এখন আর এসব খবর পড়ে আর আশ্চর্য হয় না। কারন আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কোন বাচ্চাদের খেলার অনুষ্ঠান উদ্বোধন করে হইত বলবেন, আমার পুলিশ বাহিনী ভালো ভাবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন। আইন শৃংখলা যে কোন সময়ের তুলনায় ভাল। দেশে কোন ক্রস ফায়ার নেই। তাদের ছাত্রদের হাতে কেউ মারা গেলে হয়ত উনি বলবেন এটি একটি স্বাভাবিক ঘটনা। এই যদি হয় দেশের অবস্থা আমরা প্রবাসে চিন্তায় থাকি, আমাদের পরিবার পরিজন নিয়ে। বাড়িতে টাকা পাঠালে সারাক্ষণ চিন্তায় থাকি এত পরিশ্রমের টাকা ব্যাংক থেকে তুলে ঠিক মত বাড়ি পৌছাতে পেরেছে কিনা। না পৌঁছানো পর্যন্ত বার বার ফোন করে খবর নেয়। জানি না আমরা কখনো টেনশন ফ্রি হতে পারব কিনা। কেননা প্রতিদিন নতুন নতুন অপরাধের জন্ম হচ্ছে। মা তার সন্তানকে হারাচ্ছে, কেউ গুম হয়ে যাচ্ছে, কারো জমি জোরপূর্বক দখল হয়ে যাচ্ছে, মানুষ সর্বহারা হচ্ছে , কিন্তু আমাদের সাহারা খাতুন ঠিকই গদি আগলে বসে আছেন। উনি সব কিছু দেখছেন, শুনছেন কিন্তু উনার কিছুই করার নেয়। করার কাজ হয়ত উনি উপর ওয়ালার কাছে ছেড়ে দিয়েছেন।