ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

যারা ইসলামের নামে শিশু হত্যা করে তারা নিজেদের সাচ্চা মুসলমান দাবি করলেও আসলে তারা প্রকৃত শুয়োরের বাচ্চা। এ ধরনের শুয়োরের বাচ্চার সংখ্যা পাকিস্তানেই সবচেয়ে বেশি বলে জানতাম। সম্প্রতি বাংলাদেশেও তাদের বংশ বিস্তারের উদ্যোগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে!
আমাদের সৌভাগ্য আমরা আগেই ‘পাক’ থেকে আলাদা হয়ে গেছিলাম।

পাকিদের সাথে আমাদের কিছু পার্থক্য।

২০১২-১৩ অর্থ বছরে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় ২৭ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।
পাকিস্তানের আয় ২৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার।
বাংলাদেশের বৈদেশিক বাণিজ্য ঘাটতি মাত্র ৭ বিলিয়ন ডলার।
পাকিস্তানের ঘাটতি ২০ বিলিয়ন ডলার।
বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২২ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি। রেমিটেন্স আর্নিংএও এগিয়ে
পাকিস্তানের রিজার্ভ ১০ বিলিয়ন ডলারেরও কম।

বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ৬ দশমিক ২ শতাংশ।
পাকিস্তানের ৩ দশমিক ৬ শতাংশ।

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ৬৯ বছর
পাকিস্তানের ৬৫ বছর।
(১৯৭০-এ আমাদের গড় আয়ু ছিলো ৪৪, পাকিস্তানের ছিলো ৫৫)

বাংলাদেশে প্রতি হাজারে এক বছরের নিচের বয়সী শিশুমৃত্যুর হার ৩৭।
পাকিস্তানে এ হার ৫৯।

এক থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশুমৃত্যুর হার বাংলাদেশে ৪৬।
পাকিস্তানে ৭২।

বাংলাদেশ পলিও মুক্ত অনেক আগেই।
পাকিস্তান শুধু পলিও যুক্ত না, তারা পলিও টিকাদান কর্মিদের পেলেই হত্যা করে, লাদেন হত্যার দু:খে, মাত্র এক টিকাদান ডাক্তার লাদেনের DNA কনফার্ম করেছিল।

বাংলাদেশে নারী শিক্ষার হার ৫০.২ শতাংশ।
পাকিস্তানে ৪০ শতাংশ।

গত সপ্তাহে প্রকাশ হওয়া শীর্ষ দশ সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের তালিকায় পাকিস্তানের অবস্থান অষ্টম।
সে তালিকায় বাংলাদেশের নাম নেই।

বাংলাদেশে সন্তান জন্মের হার ২ দশমিক ২ শতাংশ।
পাকিস্তানে এ হার ৩ দশমিক ৪ শতাংশ।

গত পাঁচ বছরে পাকিস্তানে ছোট বড় মিলিয়ে জঙ্গি হামলার সংখ্যা ৬০০০-এর বেশি।
গত পাঁচ বছরে বাংলাদেশে জঙ্গি হামলার সংখ্যা ০ টি।

২০১৩ সালে পাকিস্তানে বড় আকারের জঙ্গি হামলার সংখ্যা ৭৫ টি।
বাংলাদেশে ০ টি।

ফুটবলে FIFA ranking এ পাকিদের চেয়ে আলটাইম দশ-বার ধাপ এগিয়ে।
মহিলা ফুটবলেও …