ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বিবিসি সংলাপ দেখলাম। মডারেটর সহ কিছু সুশীল বলেই যাচ্ছে দেশে গণতন্ত্র নেই, প্রতিনিধীত্বশিল সংসদ নেই, সংসদ কার্যকর নেই।
এইসব শুশিল নামের কুশিলদের থিওরি হচ্ছে, রাজাকার-বদর, জংগি পৃষ্ঠপোষক বিএনপি সংসদে না থাকলে ‘প্রতিনিধীত্বশিল সংসদ’ হয়না। এরা সংসদে ৫ বছরে ১ দিনও উপস্থিত না থাকলেও সমস্যা নেই, সুধু বেতন ভাতা আনার দিন গেলেই চলবে, এরা শুশিলদের কাছে মহান ‘প্রতিনিধীত্বশিল সংসদ’। আর সে দলটি বাংলাদেশের রাষ্ট্র ক্ষমতায় থেকে খাম্বা চোরার হাউয়া ভবনের মত প্যারালাল সরকার কায়েম থাকলেই বাংলাদেশ ‘গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র’ হয়।

শুনেন, আপনেরা হুদাই ক্যাও ম্যাও করেন। শেখের বেটি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পৈড়াও নাস্তিকের লিডার আর খাম্বার মা পাঁচ ওয়াক্ত শরাবন তহুরা মাইরা পাতলা শাড়ি পিন্দাও এসলামের কান্ডারী।
হুগুরেরা যদি কয়, অই বেডা নাস্তিক; হেয় আল্লাহ্‌র প্রিয় বান্দা হইলেও অই বেডাই নাস্তিক।
হুগুরেরা বগলের তলে ফরহাদ মাজহারের ধুতির কোঁচা বাইন্ধা শাপলায় লাফায়া লাফায়া নাস্তিক থিকা খাস আস্তিক বানায়া দিলো বিলক্ষণ!
হাজার দুয়েক কুরান পুড়ছে? চোপরাও বেয়াদপ! উহা ঈমান রক্ষা করিতে শহীদ হইয়াছে।
ওদিকে এতকাল নাস্তিকের দোরপ্রহরী দুই বাম নেতা থেকে শুরু করে হাপুড়জুপুড়ি পশ্চিমে ঢিপ পাড়ার মহোৎসব লাইগা গেলো। শাহবাগের মঞ্চে শুরু হইলো কুরানখানি থিকা শুরু কইরা আজান হইলেই মাইক অফের মহড়া।
যে দু’একজন ট্যা-ফোঁ করতে চাইলো, তাহাদের বলা হইলো ৪জন দিয়া শুরু হইছে, লিস্টে বাছা তোমারো নাম আছে। কাছা গুটায়া ঘরে বইসা থাকো। জাতি ইয়ে মুঠ কইরা ঘরে বইসা চৌক্ষে আন্ধার দেখিতে লাগিলো।
হুগুরেরা নারী নেত্রী হারাম বলিয়া গরমকালে চিক্কুর পাড়িলেও শীতকালে সোহাগ করিয়া গোলাপী শাড়ির তলেই হাজেরান মজলিস।
ফাটা বাঁশে খালি বাঁইধা গেলো লতিফ সিদ্দীকীর ইয়ে।
বাংলার মেয়র তুহিন শালিক ঝোপ বুইঝা কোপ মাইরা দিলেন তুরাগের পাড় বরাবর। শালার বেটারা ইসলামের থুক্কু জামায়াতে ইসলামের বিরোধী। সুতরাং ঐটা পিকনিক। হজ্জ্ব নিয়া তার কুনো বক্তব্য নাই। তিনি জানেন, গোলাপী সামিয়ানার নিচে বইসা থাকায় তারটা ছিঁড়ে, সেই হ্যাডম এই বঙ্গ-বিহার-উড়িস্যার কারো নাই!
এদিকে, আমরা আইজো মুঠ কইরা বৈসা আছি। ছাইড়া দিলে যদি দ্বিতীয়বার মোসলমানি করায়া দেয়!