ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

প্রথম আলোর হেডলাইন ’আওয়ামী লীগের বিজয়, গণতন্ত্রের পরাজয়’ কিন্তু ভেতরে কী লিখেছে? টিভি মিডিয়ার কথা বলে লাভ নেই, তারা একই দৃশ্য বার বার দেখায়, কোন ইনসাইড রিপোর্টিং নেই। প্রথম আলো থেকে (২৯ তারিখের), ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটি করপোরেশনের ১ হাজার ৯৮২টি কেন্দ্রের মাত্র ৬৬ কেন্দ্রে বিএনপি’র এজেন্ট ছিল, কিন্তু লেখা উচিত ছিল মাত্র ৯৭% কেন্দ্রে বিএনপি’র কোন এজেন্ট দেখা যায়নি।

ভায়োলেন্স ভাংচুর মারামারি হয়েছিল আওয়ামী কাউন্সিলারদের ভেতর, নট আওয়ামী বনাম বিম্পি। কিন্তু হলুদ আলো সেটা এভাবে কখনো লিখবে না। প্রথম আলো তাদের লেখায় কেন্দ্রদখল, অনিয়ম, মারামারির ঘটনার পারসেন্টেজও প্রায় ৩%ই। দৈনিক ইত্তেফাকের দেয়া পরিসংখ্যান অনুসারে গতকাল ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মোট ১৯৮২টি কেন্দ্রের মাঝে ৫৫টিতে গন্ডোগোল হয়েছে, যার মধ্যে বাতিল হয়েছে ৩টি কেন্দ্র। যদি ধরেও নেই আরও কিছু কেন্দ্রেও সমস্যা ছিলো তাতে মোট সংখ্যা ৬০ ছাড়ায় না। এইসব কেন্দ্রকে বিবেচনায় আনলে দেখা যায় অনিয়ম হয়েছিলো মাত্র প্রায় ৩% কেন্দ্রে।

যেখানে সম্পূর্ণ ঢাকা সিটিতে ভোটার ছিলো ৪২ লাখের বেশি, আর এই অনিয়ম হওয়া কেন্দ্র ৫৫টি। অনিয়ম হাংগামায় আক্রান্ত ভোটার ছিলো কমবেশি ১ লাখের মত। যা শতাংশের হিসেবে মাত্র ২.৩%। অথচ সুজন/সিপিডি মার্কা সুশীল নামধারি কুশীলরা প্রথম আলোর রেফারেন্সে বিম্পির মত সমস্বরে বলছে, ’এমন জঘন্য নির্বাচন কখনো দেখিনি’! এ দেশে এখনও এমন সুদিন আসেনি যাতে শতভাগ অনিয়ম ছাড়া ভোট হবে। প্রথম আলো সব কেন্দ্রেরই খবর নিয়েছে। এটা 3G ইন্টারনেটের যুগ।

২২০ কেন্দ্রে তাদের লোক পাঠিয়েছিল, মোবাইলে হাংগামার খবর পেয়ে। ফাঁকা রাস্তায় হোন্ডা বা গাড়িতে সেদিন ১০-১৫ মিটিটে ঢাকার যে কোন প্রান্তে যাওয়া সম্ভব ছিল। ৩টি কেন্দ্রে বেশি হাংগামা হয়েছে (between 2 rebel AL Councillor)। ৩টি কেন্দ্র বাতিল হয়েছিল এসব কথাও এড়িয়ে গেছে প্রথম আলো। অসম্ভব চতুরতার সাথে রিপোর্টটি করেছে। যা এজেন্ডা বাস্তবায়নকারি দলকানাদের কখনো চোখে পড়বেনা।এই নির্বাচনে কিছু অনিয়ম হয়নি এটা যেমন মিথ্যা, তেমনি ঢালাওভাবে পুরোটাই ভোটচুরি বা ভোট-ডাকাতি হয়েছে, এই রকম নব্য রাজাকারি টাইপ কথাগুলোও সর্বৈব্য মিথ্যা।