ক্যাটেগরিঃ সেলুলয়েড

 

বাংলাদেশে যখন “ধর্মিয় অনুভুতি” …. “চাপাতি” ইত্যাদি নিয়ে বিতর্ক .. নবী মহাম্মদের একটি বই একুশে বইমেলা থেকে প্রত্যাহার ইত্যাদি আলোচনা সরগরম হয়ে আছে তখন ইরানে মহানবীকে নিয়ে নতুন একটি বড় বাজেটের চলচিত্র নির্মিত হয়ে প্রদর্শনের অপেক্ষায়। বহুল আলোচিত সিনেমাটির নাম -‘মুহাম্মদ: মেসেঞ্জার অফ গড’। বিশ্বে বিতর্কের তুঙ্গে থাকা এই সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন অস্কার মনোনয়ন পাওয়া ইরানি পরিচালক মাজিদ মাজিদি। সিনেমাটি নির্মাণে খরচ হয়েছে মোট চার কোটি ডলার। ইরানি সিনেমার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেটের সিনেমা এটি। কট্টরপন্থি ইরানি ধর্মিয় গ্রুপের নেতা গ্রান্ড আয়াতুল্লা থেকে গ্রিন সিগন্যাল না পেলে রক্ষণশীল ইরানের মত দেশে এই সিনেমা আলোর মুখ দেখার কথা না।
সম্প্রতি ইরানি পত্রিকা হিজবুল্লাহ লাইনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পরিচালক মাজিদি বলেন, “পশ্চিমে যে হারে ইসলামভীতি তৈরি হচ্ছে, তা মোকাবেলা করার জন্য আমি এই সিনেমাটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেই। পশ্চিমে ইসলাম মানেই সবাই বোঝে সন্ত্রাস আর হিংস্রতা।”
১৭১ মিনিটের এই সিনেমাতে দেখানো হয়েছে মহানবী (সঃ) – এর শৈশবের গল্প। বহুল বিতর্কিত নবী মহাম্মদের বাল্যকালের অভিনিত ছবিও আছে। সিনেমাটির আরো দুটি সিকুয়াল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে মাজিদির।
মধ্যপ্রাচ্যের কট্টরপন্থি মোল্লারা েই ছবি তৈরির তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। মিশরের প্রাচীনতম বিখ্যত আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয় তরফ থেকে ইরান সরকারের প্রতি সিনেমাটি নিষিদ্ধ করার আহ্বান জানানো হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী ধর্মতত্ত্ব বিভাগের প্রধান ফাত্তাহ আলাওয়ারি বলেন, নবীদের যে কোনো ধরনের মুর্তি, ছবি উপস্থাপন ইসলামী শরিয়ায় অনুমোদন করে না।”