ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

এক সময় সরকারী চাকুরীজীবীদের কাছে শুনেছিলাম তাদের অসহায়ত্বের কথা। তাই ভাবতাম তাদের তো বেতন কম তাই এমন করে ঘুষ নেয়, সরকারী চাকুরী করার সুযোগ পেয়েও করিনি ঘুষ না খেলেও কেউ বিশ্বাস করে না তাই এই দেশের সব কিছু ঘুষ বাণিজ্যর কাছে জিম্মি বলে। কিন্তু আফসোস তখনি লাগে যখন দেখি অসহায় মানুষগুলো আরও বেশি অসহায় হয়ে দাড়িয়ে থাকে কোন না কোন আমলার টেবিলের সামনে ঘুষ দিয়েও আবার না দিতে পেরেও।
নিজেকে নিয়ে কখনই চিন্তা হয় না কারন আমি বাঘ হয়ে একদিন বেঁচে থাকায় বিশ্বাসী বিড়াল হয়ে শত বছর নয়। সময় সাময়িক একটা নিউজ মনে বিস্ময়ের এর জন্ম দিয়েছে। সেটি হলো চট্রগ্রাম এর মাননীয় মেয়র জনাব আ জ ম নাসিরের মন্তব্য নিয়ে কোন আমলা নাকি উনাকে কাজ দেননি ঘুষ দেন নি বলে যেই মানুষ সরকার দলীয় প্রথম সারির নেতা যিনি কিনা ৫৫+ লাখ মানুষের প্রতিনিধি তার এমন হাল হলে আম জনতার মানে আমাদের কি অবস্থা কয়েক সেকেন্ড চোখ বন্ধ করে ভাবুন তো………।
ছবি অনলাইন থেকে সংগৃহীত
আমি নিজেও একটা কাজ করাই ঘুষ দিয়ে আরে ভাই কি ভাবছেন উপায় নেই বলে ওই কাজে তাকে ঘুষ দিয়েছি ৩৫০০ টাকা। সেটা ২০১৪ সালের কথা আরে ভাই সেই কাজ ২০১৬ তে ৫০০০ হাজার চাইল বুঝিয়ে দিলাম ৪৫০০ টাকা । ২১০৪ তে ভাবনায় ছিল তাদের বেতনে পুষায় না কিন্তু ২০১৬ তে কেন বেশি তাদের তো আমরা সরকারের হাত দিয়ে ট্যাক্স দিয়ে আঙ্গুল কে কলা গাছ বানিয়ে দিয়েছি।
আসলে আমাদের এই সকল অফিসার দের শরম নেই এটাই এখন পরিষ্কার। আমাদের স্কুল কলেজ এ ঘুষ বিরোধী আলাদা বিষয় রাখা প্রয়োজন হয়ে গেছে। আমাদের ঘাম ঝরানো টাকায় তারা আরাম আয়েশ করে আবার আমাদের পিঠে চুরি মারে আল্লাহ্‌ তাদের রক্ষা করবেন না তাদের পাপের শাস্তি তারা এই দুনিয়াতে আখিরাতে পাবে এখন এই আশা করা ছাড়া আমাদের উপায় নেই । আমরা শিক্ষিত জাতি চাই না অনেক আছে শিক্ষিত, এখন সু শিক্ষায় শিক্ষিত জাতি চাই……।