ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

বর্তমান সরকারের নিকট আমার দাবি, আশা বেশি, তাই প্রতিবাদও বেশি আমার লেখার মধ্যে রস কস কম। আমি রসালহীন। সরকার আবার নতুন করে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর জন্য নতুন পাঁয়তারা করছে।

সরকারের উচিত অবৈধ্য সংযোগ বিছিন্ন ও উক্ত ব্যাবস্থায় এলোমেলো নিয়ন্ত্রন করা।

বিদ্যুৎ এ সরকার ভরতুকি দিচ্ছে কাকে সাধারন জনকে নয় নিশ্চয়য়, দিচ্ছে যারা বিদ্যুৎ  প্রজেক্ত গুলো তৈরি করছে তাদের পকেট ভরানর জন্য। বিদ্যুৎ বিভিন্ন কারখানা ও সরকারী অফিস বিল প্যামেন্ট করেনা। সে গুলো সময় মতো কালেকশন না করে সাধারন জনতার উপর লাথি ঝাড়া বন্ধ করুন।  সাধারন পাবলিক বিদ্যুতের টাকা নিয়মিত পরিশোধ করে থাকে।

বিদ্যুৎ ও গ্যাসে পরিচালক ও অপারেটররা অবৈধ্য  যে কাজ গুলো করে তা নিয়ন্ত্রন করুন কোন ঘাটতি থাকবেনা বরঞ্চও আরও লাভজনক খাত হবে ইনশাল্লাহ। বিভিন্ন কল কারখানায়  ও ব্যাবস্যা প্রতিষ্ঠানে যে অবৈধ্য সংযোগ দিয়ে অবৈধ্য  টাকা ইনকাম করছে এই প্রতিস্থানের উপর থেকে নিচ পর্যন্ত কর্মকর্তা ও করমচারী তাদের নিয়ন্ত্রন না করতে পারলে কোন অবস্থাতেই দেশের এই দুই সেক্তরকে লাভজনক তো দুরের কথা লকশান বা খাটতি কনটাই দূর হবে না।

গ্যাস ও বিদ্যুতের অনেক কর্মকর্তা ও করমচারী আছে যারা বেতন পায় যা তাঁর কয়েকগুন অবৈধ্য আয় করে কথায় থেকে তা জনগন জানে। তাদের অবৈধ্য আয় আর জনগনের ঘুম হারাম করে , মাথার ঘাম পায়ে ফেলে যে আয় তা দিতে হয় একবেলা খেয়ে না খেয়ে। খুব কষ্টের টাকায় সাধারন মানুষ কষ্ট করে  চলাফেরা করে।

অনেক কম্পানি আছে বিদ্যুৎ প্রকলপ তৈরির কাজ নিয়েছে তাঁরা সময়ের পর সময় ক্ষেপণ করে সময়মত তো দুরের কথা ঐ বাজেটে না করে আবার বাটপারি করে বাজেট বাড়ানোর আবেদন করে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করেছেন। এই নয়ন্ত্রন করা অতিব জরুরী।

বিদ্যুৎ ও গ্যস এইসব প্রতিস্থানের এই সব অনিয়ম দূর না করলে কোনক্রমেই সাফল্য আসবেনা। আশা করা ও অসম্ভব। কারন দুর্নীতির একটি সীমা আছে । দুরনিতি সীমা অতিক্রম করেছে তাঁর জন্য জতই দাম বাড়াক কোন সাফল্য আসবেনা।