ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

 
eka cola

এক বিকাল

এক ছন্নছাড়া

একটি বিকেল একটি ঝামেলাজুক্ত অফিস সময় পিছনে ফেলে বের হলাম। প্রচণ্ড মাথা ব্যাথা কাজের চাপে। অফিস বের হতে পিয়ন কে বললাম ভাল লাগছেনা, আবার একটু দেরি করে বিশ্রাম করলাম।

 

বের হয়েই নিচে নেমে একটু হাটতেই ঝির ঝিরে বাতাস, হালকা লাগছে, শীত শীত ভাব প্রান জুড়িয়ে যাচ্ছে।ধির অতি ধির পায়ে হেটে এগিয়ে যাচ্ছি বাস স্টপে গাড়ীতে উঠার লক্ষে। মনে ইচ্ছে করছে দুহাত ঊর্ধ্বে তুলে পাখির ন্যায় আকাশে উড়ি আর বাতাসের সাথে মাখা মাখি করি মন উজাড় করে শুন্যে ঘুরি। এই শীতে মেঘলা সময়ে বিকেলে ফুর ফুরে মেজাজে লম্বা সরু বা জমির আইল ধরে হাঁটতে আমার ভীষণ ভাল লাগে। আবার যদি হয় নদীর তট তাহলে আর কি বলব মন্মাতান এক অনুভূতি।

এই আমার বাংলা এই আমার মা নয়নাভিরাম সুদৃশ্য মাঠ।

 

শীতে মেঘলা আকাশ রাতে হালকা শীত আর জোনাকি আলোয় ঘুরতে আমার বেশ লাগে। ওহ! যদি গ্রাম হত ঘুরতাম ঘুরতাম কয়েক সেকেডে কত কি যে আউল ফাউল ভাবছি আমি নিজেই জানিনা। মাথার চাপ্টা কমছে। এই আবহাওয়াটা আমার ভীষণ প্রানে দোলা দেই।  এই অনুভব আমার খুব ভাল লাগে। এই বাতাসে আমার নদীর পাড়ি ধরে হাটতে আর কিছু ফোক বা বাউল গান খুব শুনতে ভাল  লাগে।

 

কিংবা গ্রাম্য সরু পথ বেয়ে চলা মনে আবেগ তোলে হাটার জন্য। মাঠের পর মাঠ চিকন রাস্তা হেলে দুলে হাটা বেশ আরামদায়ক ও প্রানে আনে একটু আলাদা সস্তি যা প্রকাশ করা যায় না বর্নায়। ধির পায়ে অতি ধিরে আনমনে চলা যেখানে থাকবেনা দিক বিদিক চলব  মাইলের পর মেইল ঘন্টার পর ঘণ্টা। মনে সুর সুরিয়ে গাইবে হইত কোন চির চেনা সুর আউল বাউল গান।

অরিন্দম হাটিয়া চলে ………।।