ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

06-06-16 বিকাল বেলা পূর্ব আকাশে তখনও রমজানের চাঁদ দেখা যায় নাই, অথচ বাদাম ওয়ালা 20% ডিসকাউন্টে বাদাম বিক্রি করছে।
আমি দুটি কারণে অবাক হয়েছিলাম তার প্রতি,
১ম “স্বাভাবিক দর্শনে সে মেধাবি নই সবার চোখে ”
২য় “সে রাজনীতিবিদ নই “।
১ম পয়েন্টে আসি, ১০০ গ্রামে ২০% ডিসকাউন্টে সহজেই বলা যায় ১২০ গ্রাম হবে।
কিন্তু যথাক্রমে ২৫, ১৫০, ২৫০ গ্রামে কতটুকু হবে, তার মত সহজ করে কিংবা দ্রুত আমিও বলতে পারব না।
২য় পয়েন্টে আসি, বড় বড় মার্কেট কিংবা পন্যতে ডিসকাউন্ট দেওয়া হয় যেন পন্যটি বেশি বিক্রি হয় কিন্তু তাই বলে বাদামে সেটা জানা ছিল না।
আমিও বোকার মত প্রশ্ন করে বসলাম, ভাই কারণটি খুলে বলবেন।
ভাই, আগামীকাল থেকে রোজা বাদাম বিক্রি বন্ধ একমাস, রোজা থাকবেন আর আমার জন্য দোয়া করবেন।
বুঝলাম কিছু লুকানো হল,, তাই
আমি সহজ ভাবে বললাম, ভাই আমি দোয়া করতে পারব না, আজকাল পরিচিতদের জন্য দোয়া করা হয় না।
বাদামওয়ালা ভাই বলল, সমস্যা নেই, আপনি আমার কাছ থেকে বাদাম নিয়েছেন তাতেই আমি খুশি।
এতো সময় পর তার আসল উদ্দেশ্যের কিছুটা পাওয়া গেল।
বড় বড় রাজনীতিবিদ কিংবা ব্যবসায়ীদের মত প্রলোভন দেখিয়ে বেশি,পরিমাণে পণ্য বিক্রি করা।
তার চিন্তাধারা থেকে আমি একটুও অবাক হয় নাই।
যে ছেলেটির বয়স পাঁচ ,আর যে মানুষটি কিছু সময় পর মৃত্যুবরণ করবে।
সে পর্যন্ত রাজনীতি করে অথচ বলে বেড়ায় রাজনীতি আমি ঘৃণা করি।
ধর্মীয় উপাসনা থেকে শুরু করে বাজার পযর্ন্ত রাজনীতির চর্চা হয়।
আমরা যখন একসঙ্গে খেতে বসি, তখন কেউ চিন্তা করে কিভাবে বেশি খাওয়া যায়, আবার কেউ চিন্তা করে একটু কম খেয়ে কিভাবে ভালো পাত্র হওয়া যায়।
অথবা ডাঃ তাকে নিষেধ করছে, সেটা তার শরীরের জন্য বেমানান।
পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সার্থপর বাক্য হল “আমি তোমাকে ভালোবাসি ”
বেশ কয়েক মাস আগে প্রমাণ করেছিলাম।
আজ বলব, কিভাবে রাজনীতির চর্চা হয় এইখানে।
যে মেয়েটিকে দশজন প্রোপোজ করছে, তাদের সবাইকে না বলে এগারতম ব্যক্তিকে হ্যাঁ বলে দিল।
আবার ছেলের বেলাতেও এমন কিন্তু কেন?
মেয়েটি ছেলের বুদ্ধিমত্তা, সাহসিকতা, অর্থ এবং নিরাপত্তা দ্বারা প্রভাবিত।
আর ছেলেটি সৌন্দর্য, আচরণ এবং মায়ার দ্বারা প্রভাবিত।
উভয়েই সুখী থাকবে বলেই বলে,,, “ভালোবাসি ”
তারপরও দেখা যায় একে অপরে সুখী হয় না,, কারণ এটা রাজনীতির চর্চা। এখানেও ভুল সিন্ধান্ত হতে পারে।
ইহাই রাজনীতি, কখনো সুখী করবে আবার কখনো নিঃস্ব করে দিবে।

slide