ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

 

এই শহরেরে একটি রঙ চোটা বাড়ি ঘেঁষে , একটি মেয়ের জন্য ছেলেটির দাঁড়িয়ে থাকার অধ্যায় শুরু। সেই ছেলেটির মনের কথা আজও বলা হলো না মেয়েটিকে, মেয়েটিও হয়তো কোনদিন আর জানবেনা ছেলেটির এতো ভালোবাসা ছিল মেয়েটির জন্য। মেয়েটির জন্য ছেলেটির যে ভালোবাসা ছিল মেয়েটির জানা খুব দরকার না। কারন আমাদের এই সস্তা নগরে এরকম অনেক ছেলেই দাঁড়িয়ে থাকে। এরকম দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে তারা নিজেরাই ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে যায়। আমাদের এই শহরে এ রকম অনেক ছেলেকে অলি গলি না হয় পথের মোড়ে কিংবা university campus এর সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখবেন। আর এই অতিরিক্ত দাঁড়িয়ে থাকাটাই বার্ধক্য বয়সে বাতের ব্যাথার কারন হয়ে দাঁড়ায়। এরকম দাঁড়িয়ে থাকা ছেলের জন্য মেয়েদের সহানুভূতি কমই হয়। ওদের সহানুভূতি আমাদের কাম্য, জানিনা কবে পাবো ওদের সম্মতি। মূল আলোচনায় ফেরা যাক, আজও সেই পথ ধরে মেয়েটির যাওয়া আসা কিন্তু পথের ধারে রঙ চোটা বাড়ি ঘেঁষে থাকেনা সেই ছেলেটি। হয়তো মেয়েটি কোনদিন খেয়ালও করেনি তার জন্য একটি ছেলে সস্তা জামার নিচে এক হৃদয় ভালোবাসা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতো। আর খেয়াল করবেই বা কি করে মেয়েটি যে ছিল অন্ধ। এই পৃথিবীর আলো তার জন্য এক অভিশাপ। সময়ের পরিবর্তনে সেই রঙ চোটা বাড়ি আজ রঙ হয়েছে, আজও মাঝে মধ্যে সেই মেয়েটির সেই পথ ধরে যাওয়া আসা,তবে নতুন রুপে নতুন আলোয়,কারন মেয়েটি আজ তার চোখের আলো ফিরে পেয়েছে। আজ তার জন্য এই পৃথিবীর আলো কতো না ভালো। আজও ছেলেটি হয়তো অন্য কোন অলিগলি না হয় পথের ধারে দাঁড়িয়ে রয়েছে। আর মেয়েটি তার বর্তমান রুপে চোখের আলোয় আলোকিত হয়ে রিক্সায় না হয় সোডিয়াম অথবা রেডিয়াম আলোর নিচে পাশাপাশি কাছাকাছি বসে ঘুরে বেড়ায় অন্য কারও সাথে।

আসলে নারী তুমি যে অবস্থানে যে অবস্থাতেই থাকো না কেন তুমি সেখানেই অন্যন্য। আর আমাদের ছেলেগুলোর দাঁড়িয়ে থাকার ইতিহাস ঠিক যেন ছোট গল্পের মতো, ইহা শেষ হইয়াও হইলো না —- TO BE কন্টিনিউড।

ভালো থাকিস, আমরা প্রিয়তমা সুভাষিণী
আর জেনে রাখিস –
“আমার একমাত্ত ভূমি
তবুও সে তুমি”।

mad & p0et Group
We are pedestrian writer and medi0cre pers0n, but think gl0bal n0t l0cal.