ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

ক’দিন আগে ব্রিটেনের বেশ কটি স্থানে ইলেকশন হয়েছে। তার দুদিন আগে আমার ছেলেদের স্কুল গেইটে সাদামাঠা পোশাকের এক নারীপ্রার্থী আমার হাতে তার দলীয় (লেবার) প্রচারপত্র তুলে দিলেন। তার সাথে কেউ ছিলেন না। এটাই চোখে পড়ার মত একমাত্র প্রচার অভিযান। কোন পোস্টারিং, দেয়াল লেখন, মাইকিং, মিছিল, মিটিং কিছুই দেখলাম না কোথায়ও। কমনওয়েলথ রাষ্ট্রের নাগরিক হিসেবে ভোটের দিন আমি দুপুরের দিকে ভোট দিতে যাই। ভোট কেন্দ্রে মাত্র দু জন লোক। বাইরে কিংবা ভিতরে কোন পুলিশ, সিকিউরিটি অফিসার, পোলিং এজেন্ট কাউকে দেখলাম না। রাত পৌনে দশটায় আমার স্ত্রীকে নিয়ে আবার কেন্দ্রে যাই। দৃশ্য একই। আমার টাউনে সবক’টি আসনে লেবার পার্টি জয়লাভ করেছে। এস এম এস এর মাধ্যমে রেজাল্ট পেলাম পরের দিন সকালে। কোন আনন্দ মিছিল, ভাংচুর কিছুই ঘটেনি। ১৯০ বছরের ব্রিটিশ কলনী- বাংলাদেশ পাড় করেছে আরো ৬৫ বছর। জাতিগত ভাবে আমরা পেয়েছি চোরের খনি (আমাদের দেশটির প্রতিষ্ঠাতার দাবী)। ভোট চুরি করতেও আমার দেশের লোকেরা অনেক পারঙ্গমতা দেখিয়েছে। যারই ফল কেয়ারটেকার সরকার। তাও আজ মরণাপন্ন।