ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

পৃথিবী সৃষ্টির আদিকালে চামচাতন্ত্র বলতে কোন শব্দ ছিল না৤ আমাদের দেশে চামচাতন্ত্রের প্রথম সূচনা হয় যখন পর্তুগীজরা এই দেশে আসে তাদের ব্যবসায় প্রসারের জন্য৤ এরপর ইংরেজদের আমলে তা আরো বেশি প্রসার লাভ করে৤ উচ্চ- শিক্ষিত শ্রেণির একটা অংশ ইংরেজদের সুদৃষ্টি লাভের জন্য তাদের প্রশংসা শুরু করে যার চূড়ান্ত রুপ হচ্ছে চামচামী৤ এরপর পাকিস্তান আমলে এই দেশের কিছু ধর্মান্ধ লোক না বুঝে পাকিস্তানের চামচামী শুরু করে 1971 সালে এই চামচাদের চামচামীর জন্যই পাকিস্তান যুদ্ধে জয় লাভ করবে এই আশায় বাংলাদেশের উপর সাঁড়াশি আক্রমন চালায়৤ চামচামীর ফল যে কেমন হয় তা তো সবাই দেখতেই পারছেন৤ দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু বেষ্টিত হন চামচাদের দ্ধারা৤ ফলে দেশে কিছুটা…. এরপর জিয়ার আমলে কিছু নির্লজ্জ রাজনীতিবিদ জিয়ার সাথে চামচামী শুরু করে বিভিন্ন দলের বিভিন্ন লোভনীয় পদে আসীন হন৤ গড়ে তোলেন বিএনপি৤ তারপর এরশাদ আসেন৤ বিএনপির কিছু লোক ভোল পাল্টে এরশাদের দলে যোগ দেন চামচাতন্ত্র চর্চা করে৤ এরপর খালেদা জিয়া শেখ হাসিনা খালেদা জিয়া শেখ হাসিনা… চলতে থাকে৤ মাঝে অবশ্য কয়েকবার ধূমকেতুর মত চলে আসে তত্ববধায়ক সরকার৤ তাদের মদদ দেয় কিছু অতি উৎসাহী বুদ্ধিজীবী

এই রকম খেলা চলতেছিল, চলিতেছে এবং চলিবে৤ বর্তমান সরকারের মন্ত্রীদের মধ্যে যারা চামচামী যত বড় তারা তত বড় মন্ত্রী৤ এই যেমন আজ তথ্য মন্ত্রী বললেন, দেশে স্বৈরাচার থাকলে খালেদা জিয়ার দশবার ফাঁসি হয়ে যেত৤ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলছেন, অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল আছে৤ তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী বলছেন, ডিজিটাল উন্নয়নের বন্যায় ভাসছে দেশ৤ হাসিনা বা খালেদা যা বলছেন তার বাইরে কোন রাজনীতিক, আমলা, কর্মী কিছুই বলতে পারছেন না৤ যদি তারা বলছেন, আমি একটা মুরগী কিনেছে… সাথে সাথে তার অনুসারীরা বলছেন, আমাদের নেত্রী মুরগী সোনার ডিম দিচ্ছে৤ যদি কেউ বলেন, দেশে মৃত্যুহার কমে আসছে৤ সাথে সাথে তার অনুসারী বলছেন, দেশে এখন কোন মানুষই মরছে না৤

বিশ্বের কোন কাজের স্বীকৃতির সর্বোচ্চ পুরস্কার হচ্ছে নোবেল পুরস্কার হচ্ছে নোবেল পুরস্কার৤ চামচামীতে নোবেল পুরস্কার নেই৤ থাকলে আমি নিশ্চিত হাসানুল হক ইনু, এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, সুরঞ্জিত সেন, তোফায়েল আহমেদ, মো: নাসিম নিশ্চিত একবার নয় বারবার নোবেল পুরস্কার পেতেন৤