ক্যাটেগরিঃ পাঠাগার

অন্যের লেখা যেমন তেমনি নিজের লেখাকেও সমালোচনার দৃষ্টিতে পড়তে হয়। নিজের লেখাকে সাহিত্যের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে যতবার পড়া হবে ততবার নতুন নতুন কিছু শেখা হবে। লেখার সৌন্দর্যগুলো ফুটে উঠবে আর ত্রুটি-বিচ্যুতিগুলো ধরা পড়বে। ধীরে ধীরে লেখা পূর্ণতার দিকে পা বাড়াবে। তাই নিজের লেখা থেকে নিজের সাহিত্য সমৃদ্ধি করা বুদ্ধিমানেরই কাজ বটে।

অন্যের লেখাকে আমরা যেমন নির্মমভাবে ক্ষতবিক্ষত করি নিজের লেখার ব্যাপারে তা করি না। আর তাই লেখার মানোন্নয়ন হয় না। দীর্ঘদিন লেখেও নিজের লেখার বাল্যপণার বেড়াজাল থেকে মুক্ত হতে পারি না। নিজের লেখার যদি পর্যাক্রমে উৎকর্ষ ও উন্নয়ন চাই তাহলে লেখাকে সমালোচনার দৃষ্টিতে পড়ার বিকল্প নেই।

সৈয়দ শামসুল হক বড় চমৎকার বলেছেন- ‘একজন লেখককে বড় হতে হলে তাকে হতেই হয় তার লেখারই সবচেয়ে ভালো, সবচেয়ে নির্মম, সবচেয়ে নিরপেক্ষ সমালোচক। আত্মসমালোচনার পথেই আরও উত্তরণ ঘটে, হয় ভালো থেকে আরও ভালো লেখা।’