ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

বিজ্ঞাপন নিয়ে খুব প্রচলিত একটি উক্তি হল, অন্ধকারে কোন সুন্দরীর দিকে তাকিয়ে হাসা আর বিজ্ঞাপন ছাড়া কোন পণে্যর বিপণন করা একই কথা।আশ্চর্যজনক ভাবে বর্তমান সময়ের অধিকাংশ ভাল বিজ্ঞাপনের মূল পুঁজি কিন্তু সুন্দরী নারী(ব্যতিক্রম দেশাল নামের একটি ফ্যাশন হাউস)।তবে উগ্র মৌলবাদীদের দ্বারা কোন নারী ফতোয়াবাজির স্বীকার হলে নারীবাদীদের যতটা উদগ্রীব হতে দেখা যায় এব্যাপারে ঠিক ততটাই আশ্চর্যজনক ভাবে নিশ্চুপ থাকেন।নির্যাতিতা নারীর পাশে দাঁড়ান গেলে বানিজ্যকরনের স্বীকার নারীর পাশে দাঁড়াতে অসুবিধা কোথায়,আমি বুঝি না।কে জানে হয়তো এটাও নারী স্বাধীনতার অংশ!নারীকে সুন্দর ও সুশ্রী হতে হবে।কালো মেয়ের কিংবা নারীর অন্তরনিহিত কোন গুনের দাম নেই –এই ধারণা নারী মনে বপন করার গুরু দায়িত্ব ফেয়ার এন্ড লাভলি টাইপ রঙ ফরসাকারী ক্রিম কোম্পানিরা নিজ দায়িত্তে বুঝে নিয়েছেন।প্রতিদিন ব্যবহারে গায়ের রঙ দ্বিগুণ ফরসা হয়-এই ধরনের সস্তা কথা মিডিয়ার বদৌলতে আমরা এখন হরহামেশাই শুনছি।যদিও এর সপক্ষে কোন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা আছে কিনা আমি জানিনা।যদি কারো জানা থাকে জানাবেন প্লিজ।সুন্দরী না হলে কোথাও তোমার স্থান নেই-এই ধরনের অপমানসূচক ডাহা মিথ্যা কথা স্বাভাবিক বুদ্ধিসম্পন্ন নারীরা কিভাবে সহ্য করেন বা মেনে নেন,আমার অবাক লাগে।এমনকি চুলের শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপনেও নারীকে লোভনীয় ও আবেদনময়ী পোজ দিতে হবে?সমুদ্রের বিশাল খোলা প্রান্তরে বাথটাবে শুয়ে নারী শরীরে সৌন্দর্যবর্ধনকারী(!) সাবান মাখছেন,তাও পরিবারের সবাইকে একসাথে বসে টিভি পর্দায় দেখার অভিজ্ঞতাও আজকাল হচ্ছে বৈকি!চৌরাস্তার মোড়ে বিশাল বিলবোর্ডে নারী বেশ মোহনীয় ভঙ্গিতে ট্যালকম পাউডারের বিজ্ঞাপন ও নারীকেই করতে হয়। অথচ ট্যালকম পাউডার কার লাগে না?বৃষ্টিতে উদ্ভট নাচ গানের মাধ্যমে আম জনতাকে সিম কেনার কথাও ঐ নারীকেই বলতে হয়!

এভাবে লিখতে লিখতে ক্লান্ত হতে হবে কিন্তু লেখার শেষ হবে না,এটাই বাস্তবতা।তবে এইসব ঘটনাচিত্র বিশাল ক্যানভাসের ছোট অংশমাত্র।অন্তত পাশের দেশের নির্লজ্জ বিজ্ঞাপনের তুলনায় তো কিছুই না।প্রগতি,সাম্যবাদ এসব কঠিন কথা বুঝতে অনেক বাকি থাকলেও নারী যে নিজের অপমান নিজেই করছে সেটা আমার মতো অনেকেই আশা করি বুঝেন।বিজ্ঞাপন জগতের এই আকর্ষণীয় কিন্তু ভয়ঙ্কর হাতছানি কতজনকে যে অতল কালো গহ্বরে নিয়ে গেছে,সে খবরের কটাই আর লোকচক্ষে ধরা দেয়?তাই সম্মানিতা নারী আপনার সম্মান আপনাকেই রক্ষা করতে হবে।কারো ফাঁদে পড়ে কিংবা নিজের অবচেতন মনের উচ্চাভিলাষী বাসনার শিকার হয়ে অন্যের ক্রীড়নকে পরিণত হবেন না।