ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ ইলিয়াস আলী গুম হয়েছে। সব সংবাদ মাধ্যমে তা ফলাও করে প্রচারিত হচ্ছে। তাঁর দল হরতালেরও ডাক দিয়েছে। হরতালের আগের দিন গাড়ী পোড়ানো হয়েছে। এর ফলে একজন জীবন্ত দগ্ধ হয়ে মারাও গেছে। সবাই সবাই ইলিয়াস ইলিয়াস করে মাতম করতেছে ( সবাই মানে তাঁর দলের পাণ্ডারা, আন্ডা-বাচ্চারা)। তাঁর অতীত ইতিহাস যারা জানেন তাঁরা হয়ত বা মিটিমিটি হাসতেছেন, বিশেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জনাব ইলিয়াসের কীর্তিকাণ্ডকারখানা যারা দেখেছেন, যেসব পরিবারের সদস্যগণ তাঁর দ্বারা নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন সেসব পরিবারের কর্তারা কি ভাবতেছেন তা জানতে খুব ইচ্ছে করতেছে। জনাব ইলিয়াসের সাথে তাঁর ব্যক্তিগত গাড়িচালকও গত মঙ্গলবার রাত দেড়টার দিকে গুম হয়েছেন। তাঁর কথা কেউ বলতেছেন না ক্যান? সে নিম্নবর্গের তলায় থাকে বলে তাঁর গুম হওয়াটা কি গুম নয়? মিডিয়া মোড়লরা বা রাজনৈতিক কোন ব্যক্তির মুখে তাঁর নাম আসতেছে না ক্যান?

এক সময়কার `সন্ত্রাসী’ – তিনি যেসময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সচল ছিলেন সে সময়কার নিউজপেপারগুলা খুলে দেখলে সবাই বুঝতে পারবেন, `সন্ত্রাসী’ এই শব্দটা আমার না। জনাব ইলিয়াসের গুম হওয়াটা যেমন সভ্য সমাজের জন্য কলঙ্ক তেমনি তাঁর গাড়িচালকের ক্ষেত্রেও একই হওয়া উচিত। মিডিয়া ও রাজনৈতিক এলিটপনার জন্য গাড়িচালক আনসারের গুম হওয়া কি গুম নয়?

দুজন মানুষ গুম হয়েছে। তাঁরা সশরীরে ফিরে আসুক। দুজনের মধ্যে একজনের জন্য আজকে আর একজন যে পরপারে চলে গেলো এ দায় কে নিবে? এ দায় কার?