ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

যাকাত ধনীর সম্পদে দরিদ্রের ইসলাম স্বীকৃত অধিকার। নির্দিষ্ট শর্তসাপেক্ষে নির্দিষ্ট পরিমাণ নিসাবের মালিক একজন ধনবান ব্যক্তিকে বৎসরান্তে তার সম্পদের চল্লিশ ভাগের একভাগ ইসলামী শরীয়ত নির্দেশিত নির্দিষ্ট ব্যাক্তিদের মাঝে বন্টন করে দিতে হয়। এটা গরীবের প্রতি ধনীর দয়া নয়,ধনীর সম্পদে গরীবের অধিকার। পবিত্র কোরান ও হাদীস শরিফে যাকাত আদায়ের প্রতি জোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইহা ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের একটি। যাকাত অস্বীকার কারীর বিরুদ্ধে প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর (রাঃ) জিহাদ পরিচালনা করেছিলেন। যাকাত ইসলামী অর্থনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কল্যাণকামী ইসলামী অর্থনীতি যাকাতের সঠিকভাবে আদায় ও এর যথাযথ ব্যাবহার নিশ্চিত করে। প্রকৃত ইসলামী রাষ্ট্রে যাকাত আদায় ও বন্টনের জন্য একটি সক্রিয় দপ্তর কাজ করে এবং কঠোরভাবে পর্যবেক্ষন করা হয় যাতে কেউ যাকাত ফাঁকি দিতে না পারে।

আমাদের দেশে প্রায় সবাই ব্যক্তিগত উদ্যোগে যাকাত বন্টন করেন। যাকাত বন্টন করেন না বলে যাকাত উৎসবের আয়োজন করেন বলাই যথার্থ হবে ,কারণ আপনি দেখবেন লাইনে শত শত মানুষ দাঁড়িয়ে আছে আর তিনি বা তার লোক বাজারের সবচেয়ে সস্তা দামী শাড়ী -লুঙ্গী কিংবা পঞ্চাশ একশত টাকার নোট বিলাচ্ছেন। এরপরের ঘটনা আপনাদের জানা- ঠেলাঠেলি হুড়োহুড়ি এবং পদদলিত হয়ে কয়েকজনের মৃত্যু। গতকালও এরূপ একটি ঘটনা ঘটেছে রাজধানীর ফকিরেরপুলে , পদদলিত হয়ে মারা গেছেন তিনজন।

যাকাতের মৌলিক উদ্দেশ্য যদি হয় সমাজ হতে দারিদ্র দূরীকরণ, তবে কোন বাস্তব জ্ঞানসম্পন্ন লোক কি বলতে পারে এই সস্তা শাড়ি কিংবা একশত টাকা দিয়ে কোন লোকের দারিদ্র দূর হবে। ইসলাম তো যাকাত প্রদানের নাম দিয়ে আঙ্গিনায় হাজার হাজার লোক সমবেত করে উৎসব আয়োজন করতে বলেনি। দারিদ্র দূর করতে হলে এমনভাবে যাকাত দিতে হবে যেন এবার যে যাকাত নিতে আসছে সে আগামীবার না আসে। প্রয়োজনে সামর্থানুসারে কম সংখ্যক লোককে যাকাত দেয়া হোক। আপনার এলাকার কর্মক্ষম দরিদ্র লোকটিকে আপনার যাকাত দিয়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে দিতে পারেন । এতে অন্তত একটি পরিবারের দারিদ্র দূর হবে। এভাবে যদি সামর্থবানরা যার যার এলাকায় কাজ করেন,সমাজ হতে দারিদ্র দূর হতে বাধ্য,কম সংখ্যক হলেও। আর যারা বেশিসংখ্যক লোককে দিচ্ছেন অন্তত ভালমানের কিছু দেয়ার চেষ্টা করুন। এভাবে সস্তা শাড়ি-লুঙ্গির উৎসব আয়োজন করে যাকাত নিয়ে মশকরা করবেন না।

মন্তব্য ১ পঠিত