ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

বিএনপির যুগ্মমহাসচিব তারেক রহমান ২৫ মার্চ লন্ডনের একটি হোটেলে বসে ঘোষণা দিয়েছেন জিয়াউর রহমান ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি। অনুষ্টানটির মঞ্চে লাগানো ব্যানারে দেখা যাচ্ছে- বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে “বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি ও স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া” শীর্ষক আলোচনা সভা। তারেক রহমানের বক্তব্য ও ব্যানারের ভাষ্য দেখে এর সাথে সংশ্লিষ্টদের মস্তিস্কের স্থিরতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন যে কেউ। এটা কি অস্থির মস্তিস্কের কিছু লোকের কান্ডজ্ঞানহীন কাজ না বাংলাদেশের ইতিহাস নিয়ে ছেলেখেলা। কোন জাতির ইতিহাস কী এতটা খেলো একটি বিষয়?

এর আগে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে পাঠ্যবইয়ে ২৬ মার্চ জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা ঘোষণা করেন- এ বিকৃত তথ্য সংযোজন করে, যা পরবর্তীতে বাতিল করা হয়। জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক বলার ব্যাপারে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও তাদের এ বড় রাজনৈতিক অস্ত্রটি ছাড়তে বিএনপি নারাজ।

তারেক রহমানের সাম্প্রতিক বক্তব্য আরেকটি অশনি সংকেত দিচ্ছে নাতো? আবার এরা ক্ষমতায় এলে জিয়াউর রহমানকে প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে গেলাতে চেষ্টা করবে নাকি?

একটি বৃহত্তম দলের কর্ণধার হতে যাওয়া সবচেয়ে প্রভাবশালি ব্যক্তিটিই যদি এরূপ কান্ডজ্ঞানহীন বক্তব্য রাখেন, তাহলে জাতির ভবিষ্যত কোথায়? এসব বিকৃত মস্তিস্করাই কি একদিন দেশের কর্ণধার হবেন?