ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর। বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে কলংকময় দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয়ের ঠিক পূর্বক্ষণে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসর তথা রাজাকার, আল-বদর, আল-শামস সহ সকল স্বপক্ষীয় শক্তির সহযোগিতায় বাংলাদেশকে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে দেউলিয়া করার উদ্যেশ্যে শীর্ষস্থানীয় বুদ্ধিজীবিদের হত্যা করে। একটা নতুন দেশকে গড়ে তোলার জন্য সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন বুদ্ধিজীবি তথা দেশটির অগ্রগণ্য জ্ঞানী ব্যক্তিদের পরামর্শ, যাঁদের বুদ্ধি,পরামর্শ দেশটিকে গড়ে উঠতে সাহায্য করে। ‘৭১ এর ১৪ই ডিসেম্বর সেই কলংকময় দিনটির কারণে দেশ হারিয়েছে তার সমস্ত শীর্ষস্থানীয় বুদ্ধিজীবিদের, যার পরিণতি আজ আমরা দেখতে পাচ্ছি আমাদের প্রিয় বাংলাদেশের ধুঁকধুঁকে অবস্থা দেখে। সেদিনের রাজাকার শ্রেণীর দালালরা যে হীন উদ্দেশ্য নিয়ে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছিল, সেই উদ্দেশ্য আজ পুরোপুরি সফল। সমগ্র ক্ষেত্রে দেশ আজ তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে, পুরোপুরি বুদ্ধিবৃত্তিক দেউলিয়া বলতে যা বোঝায়, আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ আজ তেমনই একটা ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। অথচ দেশের এই পরিণতির জন্য যারা দায়ী তাদের বিচারেও চরম কালক্ষেপন করা হচ্ছে, ইতিহাসের চরম ঘৃণিত বরাহ শ্রেণীর ঐসব দালালদের আদৌ কোন বিচার যে হবেনা , সে ব্যাপারে দেশের সাধারণ জনগণ আজ মোটামুটি নিশ্চিত।

গতবছর এই দিনের প্রাক্কালে ‘৭১ এর বুদ্ধিজীবি হত্যার ইতিহাস নিয়ে একটি ধারাবাহিক সিরিজ লিখেছিলাম সামহোয়্যারইন ব্লগে। এখানে পুরো লেখাটার পিডিএফ লিংকটা পাওয়া যাবে। আশা করব সবাই লেখাটি নিজে পড়বেন, আশেপাশের পরিচিতজন সবার মাঝে ছড়িয়ে দেবেন, সবার জানার প্রয়োজন আছে, কিভাবে আমরা অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছিলাম যার ভার আমাদের বয়ে বেড়াতে হচ্ছে আজও, ভবিষ্যতেও বইতে হবে।