ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

 

ব্যক্তিগত কিছু কারণে গর্তে চলে গিয়েছিলাম। কেউ কোনোভাবে আমাকে ট্রেস করতে পারছিলো না। ব্লগের প্রতি অসম্ভব এক টান থাকা সত্ত্বেও আমি সময় দিতে পারছিলাম না।

কিন্তু আজ আমি হঠাৎ করেই গর্ত থেকে মাথা তুলে বের হলাম। নিজের দুটি খবরের কারণে! শেষেরটা আগে বলি- আমার একটা প্রমোশন হয়েছে, অতি আকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। গত দুয়েক মাস ধরে আশায় আশায় ছিলাম, অবশেষে সেটা ধরা দিলো। তাংখাও কিছুটা বেড়েছে বটে। তবে এই ঘটনার যেটি ইমিডিয়েট এফেক্ট, তা হলো নিজের পেশার প্রতি আরো দায়িত্ব বেড়ে গেলো। কাজের স্বীকৃতি পেলে যেমনভাবে আরো কাজ করতে ইচ্ছে করে, এখন ঠিক তাই হয়েছে।

এবার প্রথম খবরটা বলি- সরাসরি ওয়েবসাইট থেকে তুলে দিচ্ছি-

“ডয়চে ভেলের সেরা ব্লগ অনুসন্ধান প্রতিযোগিতার অনলাইন ভোট শুরু হয়েছে৷ ১১টি ভাষায় ১৭টি বিভাগে পুরস্কারের জন্য ১৮৭টি ব্লগ ও ওয়েবসাইট মনোনয়ন করা হয়েছে৷ ২রা মে অবধি ভোট দিতে পারবেন আপনারা৷

আমাদের আন্তর্জাতিক জুরি প্রতিযোগীদের মনোনয়ন করেছেন৷ এবার ভোট দিয়ে আপনাদের, অর্থাৎ জনতার পুরস্কার কে অথবা কারা পাবেন, তা নির্ধারণ করবেন আপনারা, ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা৷ অনলাইন ভোটের মাধ্যমে নির্ধারিত পুরস্কারকে বলা হয় ‘ইউজার প্রাইজ’৷ ‘ইউজার প্রাইজ’ এবং ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ দুটি আলাদা সম্মাননা এবং দুটোর তাৎপর্যও ভিন্ন৷ বিজয়ী নির্বাচনের পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাবেন সংশ্লিষ্ট নিয়মাবলীতে৷

জুরিসদস্যরা বিগত কয়েক দিনে ৩,২০০টি প্রস্তাব বিবেচনা করে দেখেছেন৷ এই পাহাড়প্রমাণ কাজ তাঁরা যে আন্তরিকতার সঙ্গে করেছেন, সে’জন্য আমরা সর্বাগ্রে জুরিদের ধন্যবাদ জানাতে চাই৷ অসংখ্য ধন্যবাদ!
এ’বছরের বব্স পুরস্কারের জন্য মনোনীত ব্লগ ও ওয়েবসাইটগুলির মধ্যে অসাধারণ কিছু দৃষ্টান্ত রয়েছে, রয়েছে ইন্টারনেটে রাজনৈতিক ও সামাজিক তৎপরতার কিছু অসাধারণ নিদর্শন৷ প্রতিযোগিতার ১১টি ভাষার সব ক’টিতে এমন সব প্রকল্প এবং উদ্যোগ নজরে পড়েছে, যেগুলি চমকে দেওয়ার মতো৷ এ’বছর বব্স’এর মূল বিষয় ‘‘জনশিক্ষা ও সংস্কৃতি’’, এবং আমাদের এই ‘স্পেশাল টপিক’ বিভাগে যে এতো বেশি প্রস্তাব এসেছে, তা’তে আমরা বিশেষ আনন্দিত৷

আগামী পয়লা মে জুরি বার্লিনে একটি যৌথ অধিবেশনে মিলিত হয়ে ছ’টি মিশ্র বিভাগে ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ বিজয়ী নির্ধারণ করবেন৷ এই মিশ্র এবং মুখ্য বিভাগগুলি প্রধানত ব্লগ, সোশ্যাল নেটওয়ার্কগুলিতে আন্দোলন , ভিডিও চ্যানেল ও অভিনব শিক্ষামূলক প্রকল্প সংক্রান্ত৷ এই ছ’টি মূল বিভাগে নির্দিষ্ট ভাষার কোনো ভূমিকা নেই, অর্থাৎ প্রতিযোগিতার ১১টি ভাষার সব ক’টি থেকেই প্রতিযোগীদের নেওয়া এবং বিচার করা হবে৷

আরো জানতে ইচ্ছে করছে? এ’সব বিভাগে মনোনীত প্রকল্পগুলি সম্পর্কে জানতে পারবেন thebobs.com/bengali পাতায় গিয়ে৷ সেখানে মনোনীত প্রকল্পগুলির বিশদ বিবরণ দেওয়া আছে প্রতিযোগিতার সব ক’টি ভাষায়৷ যে সব ভাষা আপনার জানা নেই, সে সব ভাষায় কী’ধরনের সাহসী ও সৃজনীশীল প্রকল্প ইন্টারনেটে চলেছে, তা জানার একটা বিরল সুযোগ!

বব্স ২০১২’র সব বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে ২রা মে৷ ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ বিজয়ীদের জার্মানি আসার আমন্ত্রণ জানানো হবে, যা’তে তারা ২৬শে জুন বন’এ ডয়চে ভেলের গ্লোবাল মিডিয়া ফোরাম’এর আঙ্গিকে সরাসরি পুরস্কার গ্রহণ করতে পারেন৷”

কিভাবে যেনো এই প্রতিযোগিতার সেরা ব্লগ বাংলা বিভাগে আমার ব্লগটিও মনোনয়ন পেয়ে গেছে। ওয়েবসাইটটিতে আমার ব্লগটি সম্পর্কে বলা হয়েছে-

“ইতিহাস, সংস্কৃতি এবং সমসাময়িক সামাজিক বিষয়াদির এক মিশ্রন ঘটেছে সুড়ঙ্গ নামের এই ব্লগে৷ ডা. নিয়াজ মাওলা’র ব্লগ এটি৷ লিবিয়া সফর নিয়ে তাঁর নিবন্ধগুলো পাঠকের মাঝে সাড়া ফেলেছে ইতিমধ্যেই৷ এছাড়া, বাংলাদেশের ঐতিহাসিক বিভিন্ন ঘটনাকে একটু ভিন্নভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে এই ব্লগটিতে৷”

আমি আজ খুব আপ্লুত। গর্ত থেক বের করে আনার জন্য এই দুইটি ঘটনা কি যথেষ্ট নয়? আমি যেনো খুব ভালো ডাক্তার মানুষ হয়ে রোগীদের সেবা করতে পারি- আপনাদের কাছে আমি এই দোয়াটুকু চাচ্ছি আর সেরা বাংলা ব্লগ প্রতিযোগিতায় যাতে আপনাদের শুভকামনা পাই- সেই আশা করছি।

সবাই খুব ভালো থাকুন।